বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত (নিবন্ধন নং -২৪)

বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত (নিবন্ধন নং -২৪)

HomeTop-2একই পরিবারের ৫ জনের মৃত্যুতে থমকে গেছে পুরো গ্রাম

একই পরিবারের ৫ জনের মৃত্যুতে থমকে গেছে পুরো গ্রাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ইতালি প্রবাসী ব্যবসায়ী সৈয়দ মোবারক হোসেন। সুযোগ পেয়েছিলেন স্থায়ীভাবে সেদেশে থাকার। মাসখানেক আগে দেশে এসেছিলেন, কথা ছিল স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে ইতালি যাবেন। ভিসাও প্রস্তুত ছিল কিন্তু আর যাওয়া হলো না।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বেইলি রোডের বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুনে এ পর্যন্ত ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৫ জন হলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার ইতালি প্রবাসী মোবারক হোসেন ও তার পরিবারের সদস্য।
নিহতরা হলেন- উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের শাহবাজপুর গ্রামের ইতালি প্রবাসী সৈয়দ মোবারক, তার স্ত্রী স্বপ্না (৩৫), দুই মেয়ে সৈয়দা কাশফিয়া (১৫) ও সৈয়দা নূর (১২) এবং ছেলে সৈয়দ আব্দুল্লাহ (৭)।

মোবারকের চাচাতো ভাই ফয়সাল জানান, রাজধানীর মধুবাগ থেকে স্ত্রী স্বপ্না, দুই মেয়ে সৈয়দা কাশফিয়া ও সৈয়দা নূর এবং একমাত্র ছেলে সৈয়দ আব্দুল্লাহকে নিয়ে রাতের খাবার খেতে গিয়েছিলেন মোবারক। আগুনে পুড়ে তাদের সবাই মারা গেছেন।

পরিবারটি ইতালিতে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য সব প্রস্তুতি নিয়েছিল। কিন্তু তাদের আর যাওয়া হলো না। পরিবারের আর কেউ বেঁচে রইলো না বলে জানান তিনি।

সরেজমিনে দেখা যায়, মোবারকের বাড়িতে আনা হয়েছে পাঁচটি খাটিয়া। ইতিমধ্যে বাড়ির পাশের একটি কবরস্থানে খোঁড়া হচ্ছে কবর। এলাকায় মাইকে মাইকে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে মৃত্যুর খবর ও জানাজার সময়। বাদ আসর জানাজা শেষে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে। আগুনে পুড়ে একই পরিবারে ৫ জনের মৃত্যুতে যেন পুরো গ্রাম থমকে গেছে। 

নিহত মোবারকের চাচা আব্দুল কাইয়ূম জানান, বিকালে আসর নামাজের পর শাহবাজপুর গ্রামের কবরস্থানে তাদের দাফন করা হবে।

উল্লেখ্য, রাজধানীর বেইলি রোডে একটি রেস্টুরেন্টে বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাত পৌনে ১০টার দিকে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিটের চেষ্টায় রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ ঘটনায় ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অনেকে। এদের মধ্যে ২২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ ছাড়া ৭৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। 

- Advertisement -spot_img
এই রকম আরো পোস্ট
- Advertisment -spot_img

সর্বশেষ