সোলাইমানি হত্যা: ইউরোপে ইতিবাচক সাড়া পায়নি যুক্তরাষ্ট্র

13

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, ইরাকে মার্কিন হামলায় ইরানি কমান্ডার কাসেম সোলায়মানিকে হত্যার প্রেক্ষাপটে যেমনটা প্রত্যাশা করা হয়েছিল, ওয়াশিংটনের ইউরোপীয় মিত্ররা ততটা সহায়কা না।

হামলা নিয়ে আলোচনা করতে বিশ্বজুড়ে কর্মকর্তাদের আহ্বান জানিয়েছেন পোম্পেও। এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের তারিফ করছেন যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকানরা ও ইহুদিবাদী রাষ্ট্র ইসরাইল।-খবর এএফপির

সোলাইমানিকে গুপ্তহত্যায় আঞ্চলিক উত্তেজনা হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফক্স নিউজকে দেয়া সাক্ষাতকারে পম্পেও বলেন, গত দুই দিনের মধ্যে অধিকাংশ সময় আঞ্চলিক অংশীদারদের সঙ্গে আলোচনা করে কাটিয়েছি। তাদের সহায়তা চেয়েছি। তাদের সবাই চমৎকার।

তিনি বলেন, অন্যান্য অঞ্চলের অংশীদারদের সঙ্গে আলোচনা করেছি, যা খুব ভালো হয়নি। ইউরোপীয়রা যতটা সহায়ক হবে বলে আমরা আশা করেছিলাম, আসলে তারা তেমনটি না।

এই শীর্ষ মার্কিন কূটনীতিক বলেন, সোলাইমানিকে যুক্তরাষ্ট্র কালোতালিকাভুক্ত করেছিল।

তাকে গুপ্তহত্যার পর ইউরোপীয় পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান জোসেফ বোরেল সব পক্ষকে সর্বোচ্চ সংযম অবলম্বন ও দায়িত্বশীলতা প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছেন।

ইতিমধ্যে সব পক্ষকে সংযত হতে বলেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়ের ম্যাক্রন। আর উত্তেজনা হ্রাসকেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডমিনিক রব।

পম্পেও বলেন, ব্রিটিশ, ফরাসি ও জার্মানদের বোঝা দরকার, আমরা কী করেছি। আমেরিকানরা কী করেছে। আমরা ইউরোপীয়দের প্রাণও রক্ষা করেছি। এটা পুরো বিশ্বের জন্য একটা ভালো বিষয়।

‘ইসলামী প্রজাতন্ত্রকে একটি স্বাভাবিক দেশের মতো আচরণে নিয়ে আসতে যুক্তরাষ্ট্র যা করতে চেষ্টা করছে, তাতে সমর্থন দিতে বিশ্বের সবাইকে আমরা আহ্বান জানাচ্ছি,’ বললেন পম্পেও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here