মুক্তিযোদ্ধা দম্পতিকে সংবর্ধনা

14

মিশিগান অঙ্গরাজ্যের বেভারলি হিল্স শহরে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশি-আমেরিকানদের ক্রীড়া সংগঠন ‘মিশিগান বেঙ্গলস’র ব্যতিক্রমী বার্ষিক অনুষ্ঠান। রবিবার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় শহরের গ্রোভ হাইস্কুল মিলনায়তনের এ অনুষ্ঠানে ছিল বার্ষিক নৈশভোজ, গালা নাইট ও অ্যাওয়ার্ড বিতরণ। জমকালো এ অনুষ্ঠানে মিশিগান, ওহাইও রাজ্য ও কানাডা থেকে প্রবাসীরা অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী ক্যাপ্টেন (অব.) ডা. সিতারা রহমান বীর প্রতীক এবং তার স্বামী ডা. এম আবিদুর রহমানকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করে মিশিগান বেঙ্গলস।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন ভাই মেজর হায়দার। খুনিরা তাকেও নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে। এ অবস্থায় হতভম্ব ডা. সিতারা ও তার পরিবার বাংলাদেশ ছেড়ে এসেছেন এবং বেশ ক’বছর যাবত মিশিগান অঙ্গরাজ্যে স্থায়ীভাবে রয়েছেন। মুক্তিযোদ্ধা দম্পতিকে লাল সবুজ উত্তরীয় পড়িয়ে দেন এলিশা ভূইয়া ও রায়া সিরাজ। এছাড়া ডা. সিতারাকে সম্মাননা স্মারক ক্রেস্ট তুলে দেন সাইদ ফয়সাল ও রসি মীর। এরপর ডা. সিতারার একাত্তরের ভূমিকার আলোকে সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরে শ্রেয়া হাসান।

ডা. আবিদুর রাহমান ও ডা. সিতারা সকলের উদ্দেশে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। এ সময় দর্শক সারির অনেকেই আবেগ-আপ্লুত হয়ে পড়েন।

এ বছর মিশিগান বেঙ্গলস ক্লাব প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিয়ে ক্রিকেট, ভলিবল, ব্যাডমিন্টন, টেবিল টেনিস, দাবা টুর্নামেন্ট আয়োজন করে। এতে কয়েক‘শ বাংলাদেশি অংশ নেন। এ ছাড়া প্রবাসী বাংলাদেশি-আমেরিকান শিশুদের জন্য তিন মাসব্যাপী ফুটবল ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে ২০১৯ সালের ক্লাবের সফল খেলোয়াড়দের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন- মিশিগান বেঙ্গলসের নেতৃবৃন্দ, মিডিয়াকর্মী, স্পনসর ও কমিউনিটির নেতারা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন- বাংলাদেশি আমেরিকান চিকিৎসক ও কমিউনিটি নেতা ড. দেবাশীষ মৃধা। অনুষ্ঠানে ড. মৃধাকে ক্লাবের পৃষ্ঠপোষক ও সমাজসেবক হিসেবে পুরস্কৃত করা হয়। সকল আয়োজনে নেতৃত্বের জন্য ক্লাবের ক্লাবের পক্ষ থেকে রসি মীরকে সেরা সংগঠকের পুরষ্কার দেয়া হয়।

শুরুতে মিশিগান বেঙ্গলসের কার্যকরী ও উপদেষ্টা কমিটিকে পরিচয় করিয়ে দেন উপদেষ্টা সাইদ ফয়সাল। অন্য উপদেষ্টারা হলেন- গোলাম মোস্তফা, মাহবুব চৌধুরী, ফরিদ চৌধুরী, মোহাম্মদ শাহিন ইসলাম ও আবেদুর রাসুল। কার্যকরী কমিটির সদস্যরা হলেন- সাইফ সিদ্দিকী, কৌশিক আহমেদ, মোহাম্মদ আলমগীর হোসাইন, মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন আজিজ, মারুফ মনওয়ার ও রসি মীর।

পুরস্কার বিতরণের পাশাপাশি নাচ-গানে জমজমাট ছিল অনুষ্ঠান। নৃত্য পরিবেশন করে ছোট বন্ধু মঞ্জুরি, শায়রিন, তাজরী, রিদিতা, শ্রেয়া, রায়া, এলিশা ও রায়া। গান পরিবেশন করে শিশুশিল্পী অমিতা মৃধা, নাশিতা আজিজ ও জারা আনোয়ার।

শচিন দেব বর্মণের ‘ঝিল মিল ঝিল’ গানের সঙ্গে দলীয় নৃত্য পরিবেশন করেন এমি ইসলাম, সুমাইয়া শাম্মা, শারমিন তানিম ও সানজিদা বন্যা। এছাড়া অপর দলীয় নৃত্য পরিবেশন করেন ফারজানা সানিয়া, সহেলী ও নাফিসা। জনপ্রিয় গানের সঙ্গে আরও নৃত্য পরিবেশন করেন রসি-শারমিন জুটি।

শাফকাত রহমান আবিরের দুটি গান পরিবেশন করেন জেমসের ‘মা’ ও মাহিনের ঘোড়া গুলির ‘পৃথিবীটা নাকি?’। পাশাপাশি তৃনা বড়ুয়ার লালন ব্যান্ড এর গান ‘গুরুর চরণ’ শিমুল ইউসুফ-এর সাহনাজ রহমতুল্লাহর জনপ্রিয় গান ‘সাগরের তীর থেকে’ সকল অতিথিকে মুগ্ধ করে।

এছাড়া দ্বৈত সঙ্গীত পরিবেশন করেন- মোহাম্মদ নাজমুল আনোয়ার- এনী জুটি ও জাফরি নিতু জুটি। অনুষ্ঠানে অতিথি শিল্পী ছিলেন আরশিত, প্রিয়া ও অরবিন্দ। তাদের গলায় জনপ্রিয় কিছু গান দর্শকদের মন জয় করে।

ইংরেজি জনপ্রিয় গান ‘শেপ অফ ইউ’ এর ক্লাসিক্যাল মিউজিকের সাথে ব্যাতিক্রমি এক নাচ উপহার দেন ছোট বন্ধু রিহান, আতিফ, আরিয়ান, শাম্মা, শারমিন, বন্যা ও এমি, কোরিওগ্রাফিতে ছিলেন এমি ইসলাম।

‘বিয়াইন সাব’ গানের সাথে নৃত্য নিয়ে আসেন রসি, মারুফ, সাফী, রাদিয়া, শারমিন ও পুলক। মিশিগান বেঙ্গলসের ২০১৯ সালের কার্যক্রম নিয়ে আবির হাসানের নির্মিত ডকুমেন্টারিও সকলকে মুগ্ধ করে।

উপস্থাপনায় ছিলেন পপি দাস ও উবেদা সাহিরা সাউদা। পরিচালনায় ছিলেন রসি মীর, কৌশিক আহমেদ ও সাইফ সিদ্দিকী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here