ভারতে প্রধানমন্ত্রীর মঞ্চে মহিলা মন্ত্রীর ‘গায়ে হাত’! বামেদের প্রতিবাদ

76

আন্তর্জাতিক সংবাদ ঃ প্রধানমন্ত্রীর মঞ্চে মহিলা মন্ত্রীর কোমরে অন্য মন্ত্রীর হাত দেওয়া নিয়ে তপ্ত ত্রিপুরার রাজনীতি। অভিযুক্ত মন্ত্রী মনোজকান্তি দেবকে বরখাস্ত এবং গ্রেফতারের দাবি আগেই জানিয়েছিল বামেরা। এ এবার পথে নেমে একই দাবি জানাল বামেদের শাখা সংগঠন সারা ভারত গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতি। অবিলম্বে মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে আরও বড় আন্দোলনের হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভানেত্রী তথা সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রমা দাস। পাশাপাশি আন্দোলনের প্রস্ততি নিচ্ছে কয়েকটি আদিবাসী সংগঠন এবং রাজনৈতিক দলও।

যদিও বিজেপি নেতাদের বক্তব্য, মহিলার ‘চরিত্রহনন’-এর চেষ্টা করে নোংরা রাজনীতি করছে বামেরা।

অন্য দিকে যাঁকে ঘিরে বিতর্কের সূত্রপাত মঙ্গলবার তিনিও প্রথম মুখ খুলেছেন। বিজেপির অবস্থানের প্রতিফলনই শোনা গিয়েছে তাঁর গলায়। তিনি এ দিন বলেন, ‘‘গত ৯ ফেব্রুয়ারির ঘটনা নিয়ে আমার সঙ্গে মন্ত্রী মনোজকান্তি দেবকে জড়িয়ে যে ধরনের প্রচার চলছে, তাতে আমি লজ্জিত। রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে বাম-সহ বিরোধীরা ত্রিপুরার আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করতেই এই ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে।’’ এর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপের হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন সান্ত্বনাদেবী।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি আগরতলায় একটি কর্মসূচিতে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। অনুষ্ঠানের মঞ্চে ছিলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব-সহ অন্যান্য দফতরের মন্ত্রীরাও। তার মধ্যেই ছিলেন সামাজিক উন্নয়ন ও সামাজিক শিক্ষা দফতরের মন্ত্রী সান্ত্বনা চাকমা। আর ঠিক তার পিছনেই গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে ছিলেন খাদ্য, যুব এবং ক্রীড়ামন্ত্রী মনোজকান্তি দেব।

সেখানেই দেখা যায়, পিছন থেকে সান্ত্বনা চাকমার কোমরে হাত দেওয়ার চেষ্টা করছেন। সান্ত্বনাদেবী হাত সরিয়ে দিয়েছেন, সেই ছবিও ধরা পড়ে। এই ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই ভাইরাল হয়ে যায়। তৈরি হয় তীব্র বিতর্ক। অশোভন ভাবে মহিলা মন্ত্রীর গায়ে হাত দেওয়ার চেষ্টা করায় তাঁর সম্ভ্রমহানি হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে সরব হয় নেটিজেনরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here