বাংলাদেশ যুদ্ধ নয়, শান্তি চায় :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

75

বিশেষ প্রতিবেদক: দেশ আজ উন্নয়ণের পথে এগিয়ে যাচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী । তিনি বলেন, বাংলাদেশ যুদ্ধ নয়, শান্তি চায়; তবে কেউ যদি সার্বভৌমত্ব রক্ষায় হুমকি হয়, তাকে প্রতিহত করতে সশস্ত্র বাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আরো সুদৃঢ় করতে কাজ করছে সরকার।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে গিয়ে এ কথা বলেন তিনি। সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের কারণেই দেশ আজ উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে বলেও জানান শেখ হাসিনা।

টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর বিভিন্ন মন্ত্রণালয় পরিদর্শন করে দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। তারই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার সকালে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পরিদর্শন করলেন শেখ হাসিনা। এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীও তিনি নিজেই।

সেখানে পৌঁছেই মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন সরকারপ্রধান। বৈঠকের শুরুতেই রাখা বক্তব্যে সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নে সরকারের নেওয়া নানা পদক্ষেপ তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আরো সুদৃঢ় করতেও কাজ করছে সরকার।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কারো সঙ্গে কোনো সমস্যা থাকলে সেটাও আমরা সমাধান করছি আলোচনার মাধ্যমে। আমরা শান্তি চাই, শান্তিপূর্ণ পরিবেশ চাই। কিন্তু কেউ যদি আক্রমণ করে, তাহলে তার জন্য যথাযথ জবাব আমরা দিতে পারি। আমাদের দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব যেন রক্ষা করতে পারি। সে প্রস্তুতিটা সব সময় থাকতে হবে। যুদ্ধের জন্য না, শান্তির জন্যও আমাদের প্রস্তুতি দরকার। সেখানেও অবশ্যই একটা স্বাধীন দেশ হিসেবে প্রতিটি ক্ষেত্রে আমরা অন্তত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে যাতে চলতে পারি, সে ব্যবস্থা আমাদের থাকা উচিত।’  দেশপ্রেম ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের কারণেই বর্তমান সরকার দেশকে এগিয়ে নিতে পেরেছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বলতে গেলে এক দশক একটানা রাষ্ট্র পরিচালনা করেছি। সেখানে সবার আন্তরিকতা, দেশপ্রেম, সবার কাজ করার আগ্রহ, সে আগ্রহটা আমি দেখেছি। দেখেছি বলেই আমি মনে করি, আজ এ অল্প সময়ের মধ্যে এত অর্জন আমরা করতে পেরেছি। সবার আন্তরিকতার সঙ্গে যার যার ওপর অর্পিত দায়িত্ব সম্পন্ন করার ফলাফলই হচ্ছে আজকের বাংলাদেশ। এখন উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে সারা বিশ্বে  স্বীকৃতি পেয়েছে।’

জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে যাদের পাঠানো হবে, যুদ্ধকৌশল ও সমরবিজ্ঞানে তাদের জ্ঞান যেন যুগোপযোগী হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতেও পরামর্শ দেন শেখ হাসিনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here