পথো শিশুরাও বেলুন ফুল বিক্রি করে পহেলা বৈশাখ উপভোগ করছে!

78

খন্দকার শাহীন আফরোজ: গোটা রাজধানী জুড়েই বৈশাখের উৎসব চলছে বিভিন্ন স্পটে  জিগাতল লেক ধানমন্ডি লেক, ধানমন্ডির ৩২ নম্বর লেক কলাবাগান, হাতিরঝিল, জাতীয় সংসদ ভবণের মানিক মিয়া এ্যাভিনিউসহ  বিভিন্ন স্থানে। আর এই জীবনের পথচলাতে থেমে নেই  ঝরে যাওয়া শিশুদের  বৈশাখ। তারাও নগবাসীর মতই বৈশাখ উদযাপন করছে । তবে তাদের এই বৈশাখ একটু ভিন্ন, রুটি রুজির বৈশাখ বলে দাবি করে এসব পথো শিশুরা।

বৈশাখে রঙবেরঙের নতুন জামাকাপড় নতুন সাঝেঁ নগরবাসীর উপছেপড়া ভিড় তারা কেউ এসেছেন আত্বিয়স্বজনের সাথে কেউবা ছেলে মেয়েদের নিয়ে,আবার বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে। এর মধ্যে দেখা মিলে ক্ষুদে ক্ষুদে কিছু শিশু ও বয়স্ক নারীর ,যাদের মধ্যে কিউ কেউ বিক্রি করছে বেলুন আবার কেউবা ফুল। আর নারীরা বৈশাখের মেলায় বাউল গানের সাথে নেচে যাচ্ছেন। এসব ক্ষুদে শিশুদের সাথে কথা হলে তারা বলেন, এটাই আমাদের জীবন। বড় লোকের আনন্দ উৎসব আর আমরা ছুটি মুখের আহারের সন্ধানে!

এসময়ে শিশুরা বলেন  সবার মাঝে বিক্রি করছি বেলুন আর ফুল। এসব শিশুর পরণে ছিলো পুরানো পোশাক!শিশুদের দাবি উচুঁতলার মানুষেরা নেমে এসেছে রাস্তায় বৈশাখে,‘তাদের নিকট ফুল আর সাহেবদের বাবুদের জন্য বেলুন বিক্রয় করে  যে কয় টাকা পাবো তাই দিয়ে আমাদের জুটবে ভাত।

জীবন যাদের  দু:খে গড়া  তাদের বৈশাখ আর ঈদে পায় না বলে দাবি করেন শিশু রিতুর মা’ফাতেমা। ফাতেমা বলেন,তার পরেও শান্তনা উৎসব আসে বলেই তো দুটো টাকা রোজগার করতে পারি বেলুন আর ফুল সাহেবও বেগমদের হাতে তুলে দিয়ে। এভাবেই যেনো প্রতিদিন উৎসব থাকে। তালেইতো আমার রিতুর মুখে ভাত তুলে দিতে পারবো সেই সাথে হাসি মুখ দেখবো।

এদিকে বাশঁবাড়ী বস্তি থেকে এসেছেন সখিনা (২৫) সারা বছর মানুষের বাসায় কাজ করে ঝিয়ের। আজ ৩২ নম্বর লেকে বৈশাখের বাউল গানের তালে তালে উন্মুক্ত মঞ্চের সামনে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও সে নাচছে টাকা পাবে বলে।সখিনা আওয়ার নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,সকাল থেকে সারাদিন এভাবেই নেচে যাবেন। এতে সারাদিন পড়ে দেখা যাবে হাজার টাকা বৈশাখী মেলায় ঘুরতে আসা মানুষেরা তাকে খুশি হয়ে দিয়ে থাকে। তবে এবার কত টাকা হবে দিনের শেষে বলা যাবে বলে জানান।

মতামত জানান

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here