খেয়েছেন যারা কাটমানি, দাদা-দিদিমণিরা এবার গানে গানে নচিকেতা

83

বিশেষ প্রতিবেদন:  দলের নেতা-কর্মীদের ‘কাটমানি’র টাকা ফেরত দিতে সম্প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ক্ষোভ-বিক্ষোভ চলছে।

চাপের মুখে পড়ছেন তৃণমূলের অনেক নেতানেত্র্রী। একের পর এক জায়গায় তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উগরে দিচ্ছেন সাধারণ মানুষ। সেই আবহকেই এ বার সুরে বাঁধলেন নচিকেতা গাইলেন খেয়েছেন যারা কাটমানি, দাদারা অথবা দিদিমণি, এসেছে সময়ফেরত দিন, আসছে দিন। দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে প্রকাশ : বিগত দিনে রাজ্য সরকারের উন্নয়ণের অর্থ নিজের পকেট করেছেন ভারী সেই কাট মানি নিয়ে নচিকাতার গান হৈ চৈ ফেলে দিয়েছে ভারতে!

আজ শনিবার সকালেই নচিকেতা নতুন এই রাজনৈতিক গান বেঁধেছেন। যে ভাবে ‘কাটমানি’কে কাটাছেঁড়া করেছেন নচিকেতা, তাতে কেউ কেউ প্রশ্ন তুলেছেন, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে তবে কি তাঁর তৃণমূল-মমতায় খামতি দেখা দিল? নচিকেতা যদিও সে তত্ত্ব মানতে রাজি নন। তিনি বলছেন, ‘‘আমি সততার পক্ষে। আমি সর্বদা পরিবর্তনের পক্ষে।’’ কোন পরিবর্তন? নচিকেতার কথায়, ‘‘দলীয় নেতাদের বিভিন্ন কাজকর্মে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাবমূর্তিতে একটা প্রভাব তো পড়ছিলই। মমতা এই কাটমানি ফেরত দেওয়ার কথা বলে নতুন একটা পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিলেন।” কিন্তু তাঁর এই গান তো তৃণমূলেরই সমালোচনা করছে। নেতা-মন্ত্রী-আমলা— কাউকেই ছাড় দেওয়া হয়নি। তবে কি তিনি অন্য মতাদর্শের খোঁজ পেয়েছেন? বাম থেকে তৃণমূল হয়ে বিজেপি? রীতিমতো রেগে গেলেন নচিকেতা। ‘‘দেখুন, আমার কোনও দল নেই। ছিলও না। আমি রাজনৈতিক দলের ঊর্ধ্বে। আমাকে রাজনৈতিক দলের তকমায় বেঁধে রাখা যায় না। এমন গান এই প্রথম লিখলাম, তেমন তো নয়। যখনই এমন পরিস্থিতি এসেছে আমি লিখেছি। সত্যি কথাটা জোর দিয়ে বলেছি।”তা হলে এখন কোন সত্যিটা বলতে চাইছেন? নচিকেতার জবাব, ‘‘তৃণমূলনেত্রী সঠিক রাস্তা নিয়েছেন। ওঁর কাঁধে বন্দুক রেখে সবটা চালাচ্ছিল এক দল লোক। তাঁদের আর দরকার নেই। মমতা একাই একশো। ওঁর এই সিদ্ধান্তে অনুপ্রাণিত হয়েই গানটা লিখলাম।”

শুনে নিন নচিকেতার সেই গানের অংশ বিশেষ

লোকসভা ভোটের পরে ফলাফল পর্যালোচনা করতে গিয়ে মমতা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ‘‘চোরেদের আমি দলে রাখব না।” নচিকেতা এ দিন সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে বললেন, ‘‘আমি কবে লিখেছিলাম বলুন তো, মন্ত্রীরা সব হারামজাদা আস্ত বদের ধাড়ি…।” তিনি আরও বলেন, ‘‘আমার এ গান দেশের সমস্ত ভন্ড রাজনীতিকের বিরুদ্ধে।’’

এ দিন দুপুরে নচিকেতার এই গানের একটি ভিডিয়ো নিজের টুইটার হ্যান্ডলে পোস্ট করেন গায়ক তথা  বিজেপি নেতা ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তিনি লেখেন, ‘‘মানুষের মনের কথা গানের মাধ্যমে সঠিক মাত্রার ব্যঙ্গের তড়কা লাগিয়ে সকলের সামনে নিয়ে আসার জন্য নচিকেতাদাকে আমার অশেষ ধন্যবাদ।”এ প্রসঙ্গে পরে নচিকেতাকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি হেসে বলেন, ‘‘আমি শুনেছি এক জন গায়ক গানটি নিয়ে টুইট করেছেন। আমার এ নিয়ে কিছু বলার নেই। যাঁর যা বোঝার বুঝেছেন। রামকৃষ্ণ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের দায়িত্ব তো আর রামকৃষ্ণের নয়!’’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here