এই গরমে লেবু শরবতের উপকারিতা

75

খন্দকার শাহীন আফরোজ: প্রচণ্ড গরমে একটুখানি প্রশান্তি পেতে আমরা পান করি শরবত। আর এই শরবত আমাদের দেহে পানির চাহিদা পূরণের পাশাপাশি ক্লান্তি কাটাতে সাহায্য করে।তবে প্রচন্ড গরমে বেশি খাওয়া হয় লেবুর শরবত।এটি আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী। কিন্তু আমরা অনেকেই এর পুষ্টিগুণ সম্বন্ধে জানিনা।

রক্ত থেকে বিষাক্ত উপাদান দূর করতে সহযোগীতাও করে।

বিভিন্ন জৈবিক প্রক্রিয়ার ফলাফল হিসেবে রক্তে মিশে থাকা বর্জ্য অপসারণে এবং কিছু রোগ থেকে সুরক্ষা দিতে এই ঘরোয়া উপকরণগুলো সহায়ক। স্বাস্থ্য-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে এই বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হল পাঠক।

লেবু: রক্ত এবং হজমতন্ত্র পরিষ্কার করে লেবুর রস। অম্লীয় ধরনের এই রস অম্ল-ক্ষারের মাত্রা পরিবর্তন করতে পারে এবং রক্ত থেকে বিষাক্ত উপাদান অপসারণ করতে পারে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে লেবুর রস পান করলে শরীরে থেকে দুষিত উপাদান অপসারিত হয়। কুসুম গরম পানিতে অর্ধেকটা লেবুর রস মিশিয়ে নিলেই যথেষ্ট।

অ্যাপল সাইডার ভিনিগার ও বেইকিং সোডা: এই মিশ্রণ শরীরের অম্ল-ক্ষারের ভারসাম্য রক্ষা করে, যা রক্ত এবং টিস্যু পরিশোধন করে। রক্ত থেকে ইউরিক অ্যাসিড পরিষ্কার করে এই মিশ্রণ।

দুই টেবিল-চামচ অ্যাপল সাইডার ভিনিগারের সঙ্গে আধা টেবিল-চামচ বেইকিং সোডা একটি খালি গ্লাসে মিশিয়ে নিতে হবে। মিশ্রণটি কিছুক্ষণ রেখে দিতে হবে যাতে ফেনা কমে আসে।

এরপর তাতে পানি যোগ করে সঙ্গে সঙ্গে পান করতে হবে। অ্যাপল সাইডার ভিনিগারের সঙ্গে মেশালে বেইকিং সোডা নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়। তারপরও যাদের উচ্চ রক্তচাপ আছে তাদের এই মিশ্রণ পান করার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

বেসিল: ব্যাকটেরিয়া ও প্রদাহরোধী গুণ রয়েছে বেসিলের। পাশাপাশি রক্ত পরিশোধনের ক্ষেত্রে এবং বৃক্ক ও যকৃত থেকে বিষাক্ত উপাদান দূর করতে এই ভেষজ উপাদান অনন্য।

এদিকে মূত্রের মাধ্যমে শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান দূর করবে এই উপাদান। প্রতিদিনের খাবারে পাঁচ থেকে ছয়টি বেসিল পাতার গুঁড়া মিশিয়ে দিলেই এর উপকার পাওয়া যায়।আবার একই পরিমাণ পাতা দিয়ে চা বানিয়েও পান করা যেতে পারে।

পানি: প্রাকৃতিক পরিশোধনকারী হল পানি। যত বেশি পানি পান করা হবে রক্ত ততই বিশুদ্ধ হবে।শরীর থেকে দূষিত উপাদান ধুয়ে প্রসাবের সঙ্গে বের করে দেয় পানি এবং সকল অঙ্গের স্বাভাবিক কার্যক্রম অক্ষুণ্ন রাখে।খনিজ উপাদান ও ভিটামিনের প্রবাহ নিয়ন্ত্রণেও সহায়ক পানি।

লেবু ‘ভিটামিন সি’এর ভালো উৎস। ভিটামিন সি অ্যান্টিআক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। এ ছাড়া নানাবিধ পুষ্টি উপাদানের ঘাটতি মোকাবেলা করে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে ভালো রাখে। এতে থাকা পেকটিন ফাইবার মলাশয়কে সুরক্ষিত রাখে। কারণ পেকটিন একটি দ্রবণীয় ফাইবার যা আমাদের মলকে দ্রুত নির্গমনে সাহায্য করে।

এ ছাড়া এটি শক্তিশালী এন্টিব্যাকটেরিয়াল এজেন্ট হিসেবেও কাজ করে। শরীরের পিএইচ মাত্রা ভারসাম্যপূর্ণ রাখে।

সকাল বেলায় গরম লেবুর রস শরীর থেকে টক্সিন দূর করে। হজমে সাহায্য করে ও পিত্তরসের উৎপাদন বাড়াতে সাহায্য করে।

সাইট্রিক এসিড, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফরফরাস ও ম্যাঙ্গানিজের ভালো উৎস লেবুর রস। প্যাথজেনিক ব্যাকটিরিয়ার বৃদ্ধি ও কার্যকারিতা প্রতিরোধ করে। এ ব্যাকটিরিয়া ইনফেকশন ও নানাবিধ রোগের কারণ। লেবু শরীরের বিভিন্ন অংশের সন্ধিতে ব্যথা ও জ্বালাপোড়া কমাতে সাহায্য করে।ঠান্ডায় লেবুর রস খুবই উপকারী। কারণ এতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন সি।

হৃদপিন্ডের জ্বালাপোড়ায় ক্যালসিয়াম ও অক্সিজেনের ভারসাম্য রক্ষা করে। এসময় এক গ্লাস লেবুর রস আপনাকে আরাম দিতে পারে। লেবুর রস ত্বক ভালো রাখে। বলিরেখা ও ব্রণ প্রতিরোধে বেশ কার্যকরী।

দৃষ্টিশক্তির জন্য ভালো। চোখের সমস্যার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।পরিপাক রস উৎপাদনে সাহায্য করে।দীর্ঘ পরিশ্রমের পর শরীরে লবণের ভারসাম্য আনতে সাহায্য করে।প্রচণ্ড গরমে লেবুর শরবত পান করুন নিজেকে সতেজ রাখুন এবং আরো বেশি কর্মদ্যোমী হয়ে উঠুন। তথ্য সংগ্রহ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here