দুই বাংলাতেই সমান তালে বর্তমানে কাজ করছেন সোহানা সাবা। এরইমধ্যে বিভিন্ন চলচ্চিত্রে বৈচিত্রপূর্ণ অভিনয় সুবাদে দর্শক ও সমালোচকদের মনে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। বাংলা চলচ্চিত্রের গুণী অভিনেত্রী কবরীর পরিচালনায় ‘আয়না’, মোরশেদুল ইসলামের ‘খেলাঘর’ ও ‘প্রিয়তমেষু’, মুরাদ পারভেজের ‘চন্দ্রগ্রহণ’ ও ‘বৃহন্নলা’ এবং সর্বশেষ গেল বছর টলিউডের ‘ষড়রিপু’ ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। প্রত্যেকটি ছবিতে সাবার উপস্থিতি এবং অভিনয় ছিল মনে রাখার মতো। বর্তমানে ক্যারিয়ারের খুব চমৎকার একটা সময় পার করছেন এ অভিনেত্রী। কলকাতা এবং ঢাকার চলচ্চিত্রে নিয়মিত কাজ করছেন।

সাবা এ পর্যন্ত যতগুলো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন সেসবের কোনোটিই বাণিজ্যিক চলচ্চিত্র ছিলো না। এবার প্রথমবারের মতো বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। এই চ্যালেঞ্জটা এবার নিয়েই নিলেন সাবা। তবে ভালো এবং ভিন্ন ধরনের গল্প পাওয়ার কারণেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ছবির নাম ‘আব্বাস ওটু’। ছবিটিতে আব্বাস চরিত্রে থাকছেন নিরব এবং ‘ওটু’ চরিত্রে রূপদান করছেন সাবা। এবারই প্রথম বড়পর্দায় দর্শকরা এ  দু’জনের কেমিস্ট্রি দেখতে পাবেন। সাবা জানান, সাইফ চন্দন পরিচালিত এ ছবির বেশকিছু অংশের কাজ শেষ হয়েছে। আর অল্প কিছু দৃশ্য এবং গানের কাজ শেষ হলেই ছবির শুটিংয়ের কাজ শেষ হবে। এদিকে আসছে আগস্টের প্রথম সপ্তাহে শেষ হবে সাবা অভিনীত কলকাতার আরেকটি ছবির কাজ। নাম ‘এপার ওপার’। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালিন দুই বাংলার দুই পরিবারের মধ্যে ঘটে যাওয়া কিছু সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মাণ হচ্ছে এটি। যার প্রধান নারী চরিত্রে পাওয়া যাবে সোহানা সাবাকে। এ প্রসঙ্গে তিনি বরেন, ছবিটির বেশিরভাগ কাজ শেষ হয়েছে। এটি একটি সামাজিক-রাজনৈতিক ও মানবিক গল্পের সিনেমা। আমার বিপরীতে ভারতের জনপ্রিয় বাংলা সিরিয়াল ‘ওগো বিদেশিনী’র নায়ক  সৌরভ চট্টপাধ্যায় অভিনয় করেছেন। হরনাথ চক্রবর্তী পরিচালিত এ ছবির কাজ আর কয়েকদিন করলেই শেষ হবে। সেই কাজ করতে কয়েকদিনের জন্য কলকাতায় যাচ্ছি। বলতে গেলে এখন ঢাকা টু কলকাতা মিশনেই বেশি পাওয়া যাচ্ছে সাবাকে। সামনে কি কলকাতার বড় কোনো প্রজেক্টে কাজ করতে যাচ্ছেন? এই প্রশ্নের উত্তরে সাবা বলেন, সেটা চমক হিসেবেই থাক। এখনই জানাতে চাই না। তবে হ্যাঁ সব কিছু মিলে গেলে খুব শিগগিরই কলকাতা থেকেই একটি বড় খবর জানাব। ক্যারিয়ারের এ পর্যায়ে এসে সফলতা বা কাজ নিয়ে নিজের কোনো আক্ষেপ আছে কি-না জানতে চাইলে সাবা বলেন, না। ক্যারিয়ার নিয়ে আমার কোনো আক্ষেপ নেই। আমি এ পর্যন্ত যে কয়টি কাজ করেছি, সম্মানের সঙ্গে করেছি। আর আমি বিশ্বাস করি হার্ডওয়ার্ক করার পাশাপাশি ট্যালেন্ট থাকলে সফলতা আসবেই। এটা হয়তো একটা সময়ের ব্যাপার। বর্তমানে ঢালিউডের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে ব্যবসায়িক বা ভালো ছবির দিক দিয়ে একটা শূন্যতার জায়গা সৃষ্টি হয়েছে। এটা কি পূরণ হবে বলে মনে করছেন? এই প্রশ্নের উত্তরে সাবার জবাব, আমি যখন ‘আয়না’ সিনেমাতে কাজ করেছি তখনও একসঙ্গে অনেক  সিনেমার কাজ হয়েছে। সে সময়টা সিনেমার স্বর্ণযুগও বলা যেতে পারে। দর্শকরাও সিনেমা হলে গিয়ে ছবিগুলো দেখত এবং পছন্দ করত। এখন ইন্ডাস্ট্রিতে যে গ্যাপটা আমাদের তৈরি হয়েছে সেটাও কাটিয়ে উঠব বলে বিশ্বাস করি আমি। এটা শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার। সামনে কোরবানি ঈদ। এবার ঈদে দর্শকরা  সাবাকে কি ছোটপর্দায় দেখতে পাবেন জানতে চাইলে বলেন, না । এবার কলকাতায় বেশি থাকা হবে। আসছে ঈদের জন্য ছোটপর্দার কোনো কাজ করছি না। এদিকে সাবা ‘এপার ওপার’ ছবির পর কলকাতার পরিচালক সুদীপ্ত চক্রবর্তীর একটি ছবিতে কাজ করেছেন। এ ছবির কাজও সামনে শেষ করবেন বলে জানান তিনি। তাই শিগগিরই বেশ কয়েকটি ছবি নিয়ে দর্শকদের সামনে হাজির হবেন সোহানা সাবা।