স্যাটেলাইটের মালিকানা দুই ব্যক্তির কাছে: ফখরুল

মহাকাশে পাঠানো বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের মালিকানা ‘দুই ব্যক্তির কাছে’ চলে গেছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
জাতীয় প্রেসক্লাবে শনিবার ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) উদ্যোগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তি দাবি এবং ডা. সামীউল আলম সুধীনের ওপর সন্ত্রাসীদের হামলার প্রতিবাদে আয়োজিত সভায় এমন দাবি করে তিনি বলেন, ‘ওই দুইজনের কাছ থেকেই এর (স্যাটেলাইটের) সুবিধা কিনে নিতে হবে।’
স্যাটেলাইটের মালিকানার বিষয়টি নিয়ে সন্দেহের কথা জানালেও এ নিয়ে বিস্তারিত কিছু বলেননি মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, ‘এটা আগে ঘুরুক, আবর্তন করুক পৃথিবী, পরিক্রমা করুক, তখন দেখা যাবে।’
ভারতের সঙ্গে পাঁচটি প্রতিরক্ষা সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষররে খবর গণমাধ্যমে দেখার কথা জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখন অনেক চুক্তি হচ্ছে। এই চুক্তি করার অধিকারটা কে দিয়েছে? কারণ এই সংসদ তো নির্বাচিত নয়। জনগণের পক্ষে যত চুক্তি করেন, সেই চুক্তি তো জনগণের চুক্তি নয়। সবচেয়ে বেশি দরকার যে তিস্তার পানি চুক্তি তা এখন পর্যন্ত হয়নি। আজকে বছরের পর বছর ভারত তাদের এতো ভালো বন্ধু, সেই চুক্তি হয়নি।’
খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনী এলাকায় ‘সন্ত্রাসী রাজত্ব’ চলছে অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, খুলনা থেকে বিএনপির নেতারা চলে এসেছেন। নির্বাচনের আইন অনুযায়ী ৭২ ঘণ্টা আগে চলে আসতে হয়। এখন ওখানে যেটা চলছে সেটাকে ইংরেজি ভাষায় বলে রেইন অব টেরর বা সন্ত্রাসের রাজত্ব।’
জাতীয় ঐক্য ছাড়া কোনো উপায় নেই— এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘গোটা মানুষকে এক করতে হবে। এক করে এই যে ভয়াবহ অবস্থা তা সরানোর জন্য কাজ করতে হবে। আজকে অবশ্যই অন্যান্য রাজৈনৈতিক দল, ধর্ম-বর্ণ সকলকে নিয়ে এই দানবকে সরাতে হবে। মালয়েশিয়াতেও দেখা গেলো জাতীয় ঐক্য। এই ধরনের ঐক্য না হলে এটা খুব ডিফিকাল্ট (কঠিন)। সেজন্য এখানেও জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করতে হবে।’
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আবদুল মান্নান মিয়ার সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম মহাসচিব এস এম রফিকুল ইসলাম বাচ্চুর পরিবচালনায় আলোচনা সভায় গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ড্যাবের মহাসচিব অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন, অধ্যাপক সিরাজ উদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দস প্রমুখ বক্তব্য দেন।