সুযোগ পেয়েও রানের খাতা খুলতে পারেননি সৌম্য

    দীর্ঘদিন পর দলে ফেরার পর নিজেকে ঠিকমতো মেলে ধরতে পারেননি বাংলাদেশি ওপেনার সৌম্য সরকার। সুপার ফোরের শেষ ম্যাচে গতকাল পাকিস্তানের বিপক্ষে শূন্য রানেই সাজঘরে ফেরেন তিনি। ভালো করতে পারেননি সুযোগ পাওয়া মুমিনুল হক এবং লিটন দাসও।

    এশিয়া কাপে উদ্বোধনী ম্যাচের পরেই দল থেকে ছিটকে গিয়েছেন বাংলাদেশ দলের ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল। শ্রীলঙ্কান পেসার সুরঙ্গা লাকমালের করা বল তামিমের বাঁ-হাতে লাগলে সঙ্গে সঙ্গে মাঠ ছেড়েছিলেন তিনি। তবে নয় উইকেটের পতন ঘটলে দলের প্রয়োজনে ফের মাঠে নামেন এ টাইগার ওপেনার। আর তাতেই ক্রিকেট বিশ্বের মন কেড়ে নিয়েছেন তিনি। হাতের এমন অবস্থায় এশিয়া কাপের অন্য ম্যাচে আর নামা সম্ভব ছিল না। তাই দেশে ফিরেছেন তিনি। তামিম ইকবালের জায়গা পূরণের জন্য ইমরুল কায়েস এবং সৌম্য সরকারকে সংযুক্ত আরম আমিরাতে আনা হয়। ইমরুলকে আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামানো হয়। এদিন দুর্দান্ত এক ইনিংসও খেলেন তিনি। করেছেন অপরাজিত ৭২ রান। তবে সুযোগ পাননি সৌম্য সরকার। কিন্তু নাজমুল হোসাইন শান্তর বাজে পারফরমেন্স তার জায়গাটা পরিষ্কার করে দেয়। শান্ত মোট তিন ম্যাচে ব্যাট হাতে করেছেন মাত্র ২০ রান।

    এদিকে অঘোষিত সেমিফাইনাল ম্যাচে গতকাল চোটের কারণে খেলতে পারেননি বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও। ফলে দুই অভিজ্ঞ টাইগার ক্রিকেটারের অভাবটা পূরণের জন্য তরুণদের দিকে তাকিয়ে ছিল বাংলাদেশ দল। কিন্তু প্রতিদানটা প্রত্যাশা অনুযায়ী দিতে পারেননি সৌম্য-মুমিনুলরা। সেই সঙ্গে পাকিস্তানের বিপক্ষে গতকাল ব্যর্থ ছিলেন লিটন দাসও। অনেকেই হয়তো ভাবছেন আগামী দিনে তামিম-সাকিব-মাশরাফিদের জায়গাটা লিটন-সৌম্য-মুমিনুলরাই নেবে। কিন্তু এভাবেই পারফরমেন্স করলে বাংলাদেশের ক্রিকেটের আগামী দিনগুলোর জন্য যে কি অপেক্ষা করছে তা ভাবতেই কেমন জানি লাগছে!

    গত বছরের অক্টোবর মাসে দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের পর দলে আর জায়গা পাননি সৌম্য সরকার। গতকাল প্রায় এগারো মাস পর দলে ফিরেছেন তিনি। কিন্তু অবাক করা বিষয় হলো- এতদিন পর দলে সুযোগ পেয়েও রানের খাতা খুলতে পারেননি এ বাঁ-হাতি ওপেনার। জুনায়েদ খানের বলে ফখর জামানের হাতে ক্যাচ তুলে দেন তিনি।

    পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামেননি সাকিবও। আঙ্গুলের চোট অনেক দিন ধরেই ভোগাচ্ছে সাকিবকে। এশিয়া কাপের আগে অস্ত্রোপচার করানোর কথাও ছিল। কিন্তু এশিয়া কাপে খেলার জন্য তিনি অস্ত্রোপচার না করিয়ে ইনজেকশন নিয়ে খেলছিলেন। তবে গতকাল আর পারলেন না মাঠে নামতে। তার অনুপস্থিতিতে এশিয়া কাপের এবারের আসরে খেলার সুযোগ পায় মুমিনুল হক। দ্রুত দুই উইকেটের পতন ঘটার পর অনেকে হয়তো ভেবেছিল মুমিনুল দলের হাল ধরবেন। শুরুটা অবশ্য ভালোই করেছিলেন তিনি। তিন বল খেলেই ৫ রান করেন টেস্ট স্পেশালিস্ট। কিন্তু শাহিন আফ্রিদির বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন ২৯ বছর বয়সী এ বাঁ-হাতি ক্রিকেটার। এদিকে মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ঠাণ্ডা মাথায় খেলছিলেন ওপেনার লিটন দাস। কিন্তু তারও ক্রিজে বেশিক্ষণ থাকা হয়নি। ১৬ বলে ৬ রান করে জুনায়েদের বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।