সুন্দরবনের ‘মাস্টার বাহিনী’র আত্মসমর্পণ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের উপস্থিতিতে সুন্দরবনের দুর্ধর্ষ জলদস্যু ‘মাস্টার বাহিনী’র সদস্যরা আত্মসমর্পণ করেছেন। মঙ্গলবার দুপুরে তারা সব অস্ত্র জমা দেন।

গত রোববার তাদের আত্মসমর্পণের কথা থাকলেও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে তা স্থগিত করা হয়। ‘মাস্টার বাহিনী’র প্রধানসহ সাত দস্যুকে ওইদিনই র‌্যাবের হেফাজতে নেওয়া হয়।

মঙ্গলবার সকাল থেকে মংলা ফুয়েল জেটিতে জলদস্যুদের আত্মসমর্পণের সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়। সেখানে আগে থেকেই মঞ্চও তৈরি করা হয়। বাহিনীপ্রধান মোস্তফা শেখ ওরফে কাদের মাস্টারসহ সাতজন অস্ত্র ও গোলাবারুদ নিয়ে আসেন। সকালে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ মংলায় যান।

র‌্যাব-৮ এর উপ-অধিনায়ক মেজর আদনান কবীর জানান, মাস্টার বাহিনীর সাত সদস্য ৫১টি আগ্নেয়াস্ত্র ও প্রায় সাড়ে ৫ হাজার রাউন্ড গুলি এবং অন্যান্য সরঞ্জাম নিয়ে আত্মসমর্পণ করেছেন।

মাস্টার বাহিনীর আত্মসর্মপণের খবরে তাদের আত্মীয়-স্বজনেরা সকাল থেকে মংলা ফুয়েল জেটিতে আসতে থাকেন। গণমাধ্যম কর্মীরাও সেখান ভিড় করেন।

৩ মে মাস্টার বাহিনী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও র‍্যাবের মহাপরিচালকের কাছে আত্মসমর্পণের জন্য আবেদন করে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে প্রক্রিয়া শুরু হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে র‍্যাব–৮–এর দল চরপুটিয়ায় যায়।