সাত খুনে র‍্যাবের দায় নেই: বেনজীর

0
259
print
র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ বলেছেন, নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের ঘটনার সঙ্গে সাজাপ্রাপ্ত সাবেক র‍্যাব সদস্যরা ব্যক্তিগতভাবে অন্যায় করেছে, তাদের দায় র‍্যাবের নয়। র‍্যাবই প্রথম এ ঘটনার তদন্ত করেছিল, তাদের গ্রেপ্তার করেছিল এবং বাহিনী থেকে বহিষ্কার করেছিল। এতে র‍্যাবের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়নি।

আজ শুক্রবার দুপুরে রংপুর নগরীর স্টেশন এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ড মাঠে র‌্যাব-১৩ এর প্রধান কার্যালয়ে দুঃস্থদের মধ্যে কম্বল বিতরণ শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন র‌্যাব মহাপরিচালক।

গত সোমবার নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের দুই মামলায় প্রধান আসামি নূর হোসেন ও র‍্যাবের তিন কর্মকর্তাসহ মোট ২৬ জনের মৃত্যুদণ্ড ও নয়জনের বিভিন্ন মেয়াদের কারাদণ্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করেন নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক সৈয়দ এনায়েত হোসেন। রায়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূর হোসেন, র‍্যাব-১১-এর চাকরিচ্যুত অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, চাকরিচ্যুত কমান্ডার এম এম রানা, চাকরিচ্যুত মেজর আরিফসহ ২৬ জনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে। মামলার বাকি নয় আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়।

সাত খুন মামলার রায়ের পর আজই প্রথম এ নিয়ে কথা বললেন বাহিনীটির মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। তিনি বলেন, এই দায় র‌্যাবের নয়। এর দায় দায়িত্ব তাদের, যারা অপরাধ করেছেন। কোন ব্যক্তির অপরাধের দায় কখনই র‌্যাব গ্রহণ করতে পারে না। তিনি বলেন, কিছু র‌্যাব সদস্য অন্যায় করেছে এ দায় তাদের। তবে এতে র‌্যাবের ভবিমুর্তি নষ্ট হয়েছে বলে ধরে মনে করা র‌্যাবের প্রতি অবিচার করা হবে।

বেনজীর বলেন, ওই ঘটনার পর প্রত্যেককে র‌্যাব থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। র‌্যাবই ঘটনার পর পরেই তদন্ত করে তাদের দায়ী করেছে দোষি সাব্যস্ত করেছে। শুধু তাই নয়, এর পরেই তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এখানে কিন্তু র‌্যাব কোন অন্যায়কারীকে আশ্রয় প্রশ্রয় দেয়নি।

র‌্যাব প্রধান বলেন, র‌্যাব প্রতিষ্ঠার পর গত ১৩ বছরে যে সব র‌্যাব সদস্য অপকর্মে লিপ্ত হয়েছে তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। এ পর্যন্ত শত শত সদস্যকে জেলে পাঠানো হয়েছে। তাদের চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। মাতৃবাহিনীতে পাঠানো হয়েছে। অনেককে লঘু শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

বেনজীর বলেন, র‌্যাব সদস্যদের কোন অন্যায় সহ্য করা হবে না। যে কোন মূল্যে র‌্যাবের ক্লিন ইমেজ রক্ষার জন্য যা করা দরকার তাই করা হবে। তিনি বলেন, র‌্যাব যেভাবে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে কাজ করছে তাতে ইতিমধ্যে দেশের জনগণের অকুন্ঠ ভালবাসা অর্জন করেছে।

র‌্যাব মহাপরিচালক জানান, জঙ্গি তৎপরতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে র‌্যাব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যৌথভাবে দেশের ১৪টি জেলায় গবেষণা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জঙ্গিবাদের উত্থানের কারণ অনুসন্ধান করে প্রতিকারের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে অনুষ্ঠানে মোট সাত হাজার দুঃস্থ মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়। এ সময় র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY