সরকার চলনবিলবাসীর পাশে আছে : প্রতিমন্ত্রী পলক

0
70

নাটোর প্রতিনিধিঃ
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী এ্যাডঃ জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেছেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে যেভাবে চলনবিলের বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলাসহ বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়ানো হয়েছিল। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পরও ঠিক একই ভাবে বানভাসি এসব ক্ষতিগ্রস্ত মানুষকে পুনর্বাসন ও সাবলম্বী করতে সরকার পাশে থাকবে। এতে চলনবিলের মানুষ আবারও ঘুরে দাঁড়াবে।
শনিবার সকাল ১০ টার সময় নাটোরের সিংড়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের ঘরবাড়ি মেরামতের জন্য ত্রাণের ঢেউটিন ও নগদ অর্থ বিতরণকালে তিনি প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার আসিফ মাহমুদের সভাপতিত্বে সভায় প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, সাম্প্রতিক বন্যায় সিংড়া উপজেলা ও পৌরসভায় ১২১টি গ্রামের ৯ হাজার ৩২০টি পরিবারের ৪১ হাজার ৯৪০ জন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এর সাথে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১১ হাজার ৮১০ হেক্টর জমির ফসল, ৪৮০মিটার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ও ৯০২টি পুকুর ভেসে গেছে। তিনি বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৪ হাজার ২৯০ জন মানুষের জন্য ২৭টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছিলো। তাদের জন্য খাবার, ওষুধপত্রসহ সকল সহায়তা দেয়া হয়েছে। তারা যাতে ঈদ আনন্দ থেকে বঞ্চিত না হয়, সেজন্য আশ্রয় কেন্দ্রের পাঁচ হাজার জনগোষ্ঠির জন্য ১২ টি গরু ও ১১ খাসি কোরবানী দেওয়া হয়েছে। সরকারী ভাবে ইতোমধ্যে ২৫০ মেট্রিকটন জিআর চাল ও ১০ লাখ ৪০ হাজার টাকা জিআর ক্যাশ বিতরণ করা হয়েছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের পুর্নবাসন ও সাবলম্বী করতে নতুন করে তালিকা করা হচ্ছে। তাদের জন্যে মন্ত্রনালয়ের কাছে দুই হাজার বান্ডিল ঢেউটিন ও আড়াই কোটি টাকার চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে।
এ জন্য প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা প্রস্তুত করতে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। চলনবিলের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষকে আবারও সাবলম্বী করে গড়ে তোলা হবে। সঠিক ভাবে তালিকা প্রণনয় হলে কোন ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার এই সহায়তা থেকে বঞ্চিত হবে না বলে জানান প্রতিমন্ত্রী ।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, পৌরসভার মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সৈয়দ আরিফুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমিন, চৌগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম ভোলা, শেরকোল ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফুল হাবিব রুবেল,উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম শরীফ, পৌর যুবলীগের সভাপতি সোহেল তালুকদার প্রমুখ। এসময় প্রতিমন্ত্রী ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রনালয় থেকে প্রদত্ত বানভাসি ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য বরাদ্দ পাওয়া ১৭৯ বান্ডিল ঢেউটিন ও নগদ পাঁচ লাখ ৩৭ হাজার টাকা উপজেলার ৮৯ টি পরিবারকে দুই বান্ডিল করে ঢেউটিন ও নগদ ৬ হাজার করে টাকা প্রদান করেন।
এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে ২০ টি পরিবারকে গরুর বাছুর দেন প্রতিমন্ত্রী । এ সময় প্রতিমন্ত্রী তার ব্যক্তিগত তহবিল হতে প্রতিবন্ধী আঃ আজিজ ও মোর্শেদুলকে রিকসার ব্যাটারি প্রদান করেন। পরে তিনি সিংড়া টিবিএম কলেজের নবীন বরণ অনূষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে যোগদান করেন এবং চকসিংড়া মহল্লায় অসুস্থ্য প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা আঃ হামিদকে দেখতে যান।

LEAVE A REPLY