শিবগঞ্জে বিজিবি কর্তৃক গরু ব্যবসায়ীরা হয়রানির শিকার বলে অভিযোগ উঠেছে

0
180

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : শিবগঞ্জে বৈধভাবে গরু ব্যবসা করতে গিয়ে ব্যবসায়ীরা বিজিবির হাতে চরমভাবে হয়রানি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা বিওপিতে।
এলাকাবাসী ও গরু ব্যবসায়ীরা জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার দূর্লভপুর ইউনিয়নের বার রশিয়া গ্রামের গরু ব্যবসায়ী কামরুল, রায়হানুল, মামুন, কালাম ও মনাকষা ইউনিয়নের পারচৌকা গ্রামের রোজবল সহ কয়েকজন বৈধ কাগজপত্র সহ ৩৬টি গরু নিয়ে রাজশাহী সিটি হাটে যাবার পথে মনাকষা বিওপির বিজিবির সদস্যরা কালুপুরা বটতলা নামক স্থান হতে গরু গুলো আটক করে বিজিবি ক্যাম্পে নিয়ে আসে। গরু ব্যবসায়ীরা তৎক্ষনাত কাগজপত্র নিয়ে ক্যাম্পে নিয়ে গেলে বিজিবি সদস্যরা বিভিন্ন টালবাহানা করে। ফলে বৈধ কাগজের সময় পার হয়ে যায়। পরের দিন দুপুরে বিজিবি সদস্যরা চালান নিয়ে যেতে উদ্যোত হলে গরু ব্যবাসায়ীরা গরু বোঝাই স্ট্যারিয়ারিং গাড়ীর সামনে শুয়ে পড়ে প্রতিবাদ জানায়। ফলে বাধ্য হয়ে গরু চালান দেয়া বন্ধ করে। এমতাবস্তায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে অধিনায়ক লে: কর্নেল আবুল এহেশান ঘটনা স্থলে এসে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাদের সাথে আলোচনা করে ৩৬টি গরুর পুনুরায় কাগজ তৈরী করিয়ে গরু গুলো ছাড় দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।
গরু ব্যবসায়ী কালাম, রোজবুল, রায়হানুল, কামরুল সহ অনেকেই জানান, শুধু আজকেই নয় বিজিবির সদস্যরা কারনে অকারণে আমাদেরকে চরম হয়রানী করে আসছে। তারা আরো জানান মঙ্গলবার রাত ১২টা পর্যন্ত আমাদের গরু গুলোর বৈধ কাগজপত্র করা ছিল এবং আমরা ঐ সময়ের মধ্যে রাজশাহী সিটির হাটে পৌঁছে যেতাম। কিন্তু আমাদেরকে হয়রানি করে পুনুরায় কাগজপত্র করতে হল। ফলে একদিকে যেমন আমরা চরম হয়রানি হয়েছি, অন্যদিকে মোটা অংকের টাকা খরচ হলো।
এ ব্যাপারে বুধবার বিকাল তিনটার দিকে মনাকষা বিওপির কমান্ডারের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে গেলে তিনি এক ঘন্টা অপেক্ষা করতে বলেন। এক ঘন্টা পর বিকাল ৪টায় আবারো যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে উপস্থিত অধিনায়ক লে: কর্নেল আবুল এহসানের সাথে কথা বলতে বলেন। কিন্তু অধিনায়ক বলেন সাংবাদিকদের সাথে কোন কথা বলা যাবে না।

LEAVE A REPLY