শিবগঞ্জের সীমান্ত পথে চোরাই পথে আসছে গরু, সরকার বঞ্চিত হচ্ছে রাজস্ব থেকে

0
189
Smiley face

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:
শিবগঞ্জে মাসুদপুর, সিংনগর ও মনোহরপুর সীমান্ত এলাকার তিনটি বিওপির অধীনস্ত এলাকায় কোন গরুর বীট না থাকায় একদিকে যেমন কয়েক হাজার শ্রমিক, সহস্রাধীন গরু ব্যবসায়ী বেকার হয়ে পড়ায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন, অন্যদিকে তেমনি চোরাইপথে ভারত থেকে গরু আমদানীকৃত গরু করিডোর না হওয়ায় সরকার মোটা অংকের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। সরেজমিন ঘুরে সীমান্ত এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকার গুরু ব্যবসায়ী, শ্রমিক ও অন্যান্য সূত্রে জানান গেছে বর্তমানে মাসুদপুর, সিংনগর ও মনোহরপুর সীমান্ত এলাকা দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ২শ করে গরু চোরাই পথে আসছে।আর চোরাই পথে গরু আসতে সহযোগিতা করছে কয়েকজন দালাল। যারা বিজিবির অজুহাত দিয়ে গরু প্রতি এক হাজার টাকা করে আদায় করছে। সূত্রমতে চোরাই পথে আমদানী হওয়া গরুগুলো সীমান্ত এলকার গ্রামে বা মহল্লায় বাড়িতে রেখে ইউনিয়ন পরিষদ ও বিজিবির নিটক হতে কাগজ করে বাড়ির গরু হিসাবে বৈধ করে নিয়ে উপজেলার বিভিন্ন পশু হাতে বিক্রী করছে। ফলে সরকার প্রতিদিনই প্রায় সোয়া লাখ টাকা রাজস্ব হতে বঞ্চিত হচ্ছে। মাসুদপুর বিওপির অধীনস্ত সাবেক বিট মালিক ও বিশিষ্ট গরু ব্যবসায়ী সফিকুল ইসলাম জানান সীমান্ত এলাকার তিনটি বিওপির অধীনে গরুর বিটের ব্যবস্থা হলে একদিকে প্রায় ৫হাজার শ্রমিক ও সহস্রাধীন গরু ব্যবসায়ী উপকৃত হবে এবং সরকার মোটা অংকের রাজস্ব পাবে। অন্যদিকে বিটে কাজ করা শ্রমিক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন মাসুদপুর ঠুঠাপাড়ায় গরুর বিট না থাকায় কোন কাজ না পেয়ে বেকার হয়ে পড়েছি। এভাবে কাড়ি ব্যবসায়ী, হোটেল ব্যবসায়ী সহ শত শত লোক একই সুরে কথা বলেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছু বিজিবির অজুহাতে টাকা আদায় কারী একজন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন চোরাইপথে গরু খুব আমদানী হচ্ছে। তবে বিজিবি সদস্যরা তৎপর হয়ে চোরাইপথে আমদানী হওয়া গরুগুলো ধরে চালান দিচ্ছে। এ ব্যাপারে মনাকষা, মনোহরপুর ও মাসুদপুর বিওপির কমান্ডার গণ জানান চোরাইপথে কোন গরু আমদানী হচ্ছে না। এলাকায় বীট হলে গরু আমদানীর মাধ্যমে আমাদের দেশের রাজস্ব বাড়তো, অনেক গরীব লোকের কর্মসংস্থান হতো এবং গরু দেশের বিভিন্ন এলাকায় রপ্তানী করা যেতো।
এ ব্যাপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ বিজিবির ৫৯ বাটালিয়ন অধিনায়ক লে: কর্নেল আবুল এহসানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও ফোন রিসিভ না করায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
মো:শাহ্ আলম
চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

LEAVE A REPLY