অতিরিক্ত পরিশ্রম, দুশ্চিন্তা, ভয় ও স্নায়ুর দুর্বলতা থেকে আমাদের শরীরের রক্ত চাপ কমে যায়। সাধারনত রক্তচাপ যদি ৯০-৬০ বা এর আশেপাশে হয় তাহলে তাকে ‘লো ব্লাড প্রেসার’ বা নিম্ন রক্তচাপ হিসেবে ধরা হয়। শরীরে রক্তচাপ কমে গেলে মস্তিষ্ক, কিডনি ও হৃদপিণ্ডে ঠিকভাবে রক্ত চলাচল করতে পারে না।

এতে শরীরে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এর মধ্যে আছে ক্লান্তি, অবসাদ, অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, বমি বমি ভাব, বুক ধড়ফড় করা, দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসা, স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে কষ্ট, অতিরিক্ত ঘাম-ইত্যাদি হতে পারে। গর্ভাবস্থায় হরমোনের তারতম্যের কারণেও অনেক সময় রক্তচাপ কমে যায়।

তবে হঠাৎ করে রক্তচাপ কমে গেলে ঘরোয়া পদ্ধতিতে তা নিরাময় করা যেতে পারে। জেনে নিন রক্তচাপ কমে গেলে কি করবেন-

এক গ্লাস পানিতে দুই চা-চামচ চিনি ও এক থেকে দুই চা-চামচ লবণ মিশিয়ে খেয়ে নিতে পারেন। লবণে সোডিয়াম থাকায় এটি রক্তচাপ বাড়ায়। তবে ডায়াবেটিস থাকলে চিনি না খাওয়াই ভালো।

কফি রক্তচাপ বাড়াতে খুবই কার্যকরী। যারা দীর্ঘদিন ধরে নিম্ন রক্তচাপ বা লো প্রেসারের সমস্যায় ভুগছেন, তারা সকালে নাস্তার পর এক কাপ কফি খেতে পারেন।

বিটের রস উচ্চ কিংবা নিম্ন রক্তচাপ- দুইটির জন্যই সমান উপকারী। এটি রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।এটি এক সপ্তাহ খেলেই উপকার পাওয়া যাবে। এছাড়া রক্তচাপ কমে গেলে বাদামও খেতে পারেন।

পুদিনা পাতায় থাকা ভিটামিন ‘সি’, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম ও প্যান্টোথেনিক উপাদান দ্রুত উচ্চ রক্তচাপ বাড়ায়। সেই সঙ্গে মানসিক অবসাদও দূর করে।রক্তচাপ স্বাভাবিক করতে পুদিনা পাতা বেটে,মধুর সঙ্গে মিশিয়েও খেতে পারেন।

এছাড়া মধু খেলেও রক্তচাপ স্বাভাবিক হতে সাহায্য করে।