রাবিতে ছাত্র-শিক্ষক নির্যাতন দিবস পালিত

0
159
print
রাজশাহী প্রতিনিধি :
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র-শিক্ষক নির্যাতন দিবস উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবন চত্বরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ আলোচনা সভার আয়োজন করে। এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাসে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় সেখানে গিয়ে আলোচনা সভা করে।
আলোচনা সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আবদুস সোবহানের সভাপতিত্বে ও রেজিস্ট্রার এম এ বারীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর হারুন-অর-রশিদ উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনন্দ কুমার সাহা ও রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো: আয়েন উদ্দিন। এছাড়াও তৎকালীন কারাবন্দি শিক্ষক মলয় কুমার ভৌমিক উপস্থিত ছিলেন।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুথানে ও একাত্তারের মহান মুক্তিযুদ্ধে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়র শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বীরের মতো ভূমিকা পালন করেছেন। পুরো জাতির কাছে তারা উজ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। সেনা সমর্থিত তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের আটজন শিক্ষককে কারাবরন করতে হয়েছে। নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে শিক্ষার্থীদের। এখন আমাদের সচেতন হতে হবে যে কোন অগণতান্ত্রিক শক্তি মাথাচড়া দিয়ে উঠতে না পারে।’
তিনি আরো বলেন, ‘বিশ্বের ইতিহাসে আর কোন দেশে খোঁজে পাওয়া যাবে না, যে দেশে স্বাধীনতার জন্য ত্রিশ লক্ষ লোককে শাহাদাত বরণ করতে হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ বিশ্বের মানচিত্রে সে ইতিহাস রচনা করেছে। মহান মুক্তিযুদ্ধের পরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র গঠন করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু একটি কুচক্রি মহল বঙ্গবন্ধু সে স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে দেয়নি। এখনো সেই কুচক্রি মহল দেশে বিভিন্ন উপায়ে অরাজকতা সৃষ্টি করার পায়তারা চালাচ্ছে।’
এদিকে দিবসটি উপলক্ষে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন ও র‌্যালী করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ। এদিন দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনের সামনে তাঁরা এ কর্মসূচি পালন করেন।
মানববন্ধনে প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. রকীব আহমদের সভাপতিত্বে ও অধ্যাপক ড. মো. রবিউল ইসলামের সঞ্চালনায় মানববন্ধন বক্তব্য দেন, তৎকালীন সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কারা নির্যাতনের শিকার শিক্ষক অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার তাপু,অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক ও অধ্যাপক ড. চৌধুরী সারওয়ার জাহান। এছাড়াও তৎকালীন নির্যাতিত ছাত্রদের মধ্যে বক্তব্য দেন মো. আয়াজ ও মিজানুর রহমান মিঠু।
প্রসঙ্গত, ২০০৭ সালের ২০ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তবিভাগীয় ফুটবল খেলা দেখার সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে গ্যালারিতে বসাকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের ওপর হামলা ও নির্যাতন চালায় সেনাবাহিনীর সদস্যরা। এই ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়লে সারাদেশে ছাত্র-ছাত্রীরা রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ জানায়। ২০ থেকে ২৩ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর অমানবিক নির্যাতন চালায়। ২৩ আগস্ট ২০০৭ সেনাবাহিনী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন অর রশিদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করে। ২০ আগস্ট থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের শুরু করা আন্দোলন সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন জন শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে কারাবরণ করতে হয়।

LEAVE A REPLY