print
রাজশাহী প্রতিনিধি :
রাজশাহী ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি (আইএইচটি) ছাত্রীদের ওপর ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হামলার ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। আইএইচটির অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম এই তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে আমিই এই কমিটি গঠন করে দিয়েছি। আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে কমিটির সদস্যদের বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। কমিটিকে নির্দিষ্ট করে সময় বেধে দেয়া না হলেও অতিসত্বর প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য বলা হয়েছে।

অধ্যক্ষ জানান, তিন সদস্য বিশিষ্ট এই তদন্ত কমিটিতে আইএইচটির সহযোগী অধ্যাপক ডা. আনোয়ারুল ইসলামকে প্রধান করা হয়েছে। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন- সহকারী অধ্যাপক ডা. দুরুল হুদা ও ডা. সেলিম খান।

প্রসঙ্গত, বুধবার সকালে আইএইচটি শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পুলিশের সামসেই ক্যাম্পাসে ছাত্রীদের ওপর হামলা চালান বলে অভিযোগ ওঠে। ছাত্রী হোস্টেলে প্রবেশ ও অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজসহ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে এসব বন্ধের দাবিতে ছাত্রীরা অধ্যক্ষর কাছে স্মারকলিপি দিয়ে বের হলে তাদের ওপর এই হামলার ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় অন্তত পাঁচ ছাত্রী আহত হন। ঘটনার পর অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের জরুরী সভায় অনির্দিষ্টকালের জন্য প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ ঘোষণার সিদ্ধান্ত হয়। পরে তা শিক্ষার্থীদের জানিয়েও দেয়া হয়। বন্ধ ঘোষণার পর বুধবারই হোস্টেল ত্যাগ করেন প্রতিষ্ঠানের আবাসিক শিক্ষার্থীরা।

এদিকে ছাত্রীদের ওপর ন্যাক্কারজনক এই হামলা চালানোয় আইএইচটি ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। বুধবার রাতে রাজাশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রকি কুমার ঘোষ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সংগঠনের নিয়ম-শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও আইএইচটিতে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটানোর কারণে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আইএইচটি ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জাহিদ ও সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন তুহিনসহ চার নেতাকে বহিষ্কারের জন্য ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সুপারিশ পাঠানো হয়েছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম জানান, ছাত্রীদের ওপর হামলার ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে আইনগত বা প্রশাসনিক কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। আর পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত আইএইচটি বন্ধ থাকবে বলেও জানান অধ্যক্ষ।

LEAVE A REPLY