রাজধানীতে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে গরু ব্যবসায়ী, সর্বস্ব খুইয়ে হাসপাতালে

নোমান মাহমুদঃ রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকা থেকে গাড়িতে উঠে গাবতলী গরুর হাটে যাওয়ার পথে বাসে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে সর্বস্ব খুইয়েছেন মোঃ মিজান (৩২) নামে এক গরু ব্যবসায়ী। পরে অচেতন অবস্থায় গাড়ির সিটে পড়ে থাকতে দেখে তাকে উদ্ধার করে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

জানা যায়, গতকাল (সোমবার) বিকালে গরু কেনার উদ্দেশ্যে রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকা থেকে বৈশাখী পরিবহনের একটি বাসে উঠে গাবতলীর উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার পর পথিমধ্যে পাশের সিটে যাত্রিবেশে থাকা অজ্ঞাতনামা দূর্বৃত্ত ব্যবসায়ীর নাকের কাছে একটি রুমাল চেপে ধরলে সে অচেতন হয়ে পড়ে। এসময় দূর্বৃত্তরা ঐ ব্যবসায়ীর কাছে থাকা মোট ১ লক্ষ ১৭ হাজার টাকা ও ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে বাসটি গাবতলী অতিক্রম করে সাভারে আসার পর অচেতন অবস্থায় ঐ ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে আজ সকালে তার জ্ঞান ফেরে। ভুক্তভোগী ঐ ব্যবসায়ী মোঃ মিজান রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকার নামারপাড়া এলাকার মোঃ আবু সাইদের ছেলে।

উল্লেখ্য, দিনের পর দিন রাজধানী ও তার আশেপাশের এলাকায় আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে ছিনতাই, ডাকাতি, চেতনানাশক দিয়ে সর্বস্ব ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনা। দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বরাবরই ব্যর্থ এসকল অপরাধী চক্র নির্মূলে। মাঝে মাঝে দু’একটি চক্র ধরা পরলেও অধিকাংশই থাকে ধরা ছোয়ার বাহিরে। আবার বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির যুগে এসকল ঘটনায় খোয়া যাওয়া মোবাইল ফোনগুলোর সুত্র ধরে অপরাধীদের খুজে বের করা সহজ হওয়া সত্ত্বেও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে এসব অপরাধী চক্র দমনে প্রযুক্তির ব্যবহার করে তেমন কোন কার্যকর ভুমিকা গ্রহন করতে দেখা যায়না।

এদিকে অনুসন্ধানে দেখা যায়, অধিকাংশ ছিনতাই-ডাকাতির ঘটনাতেই ভুক্তভোগীদের অন্যান্য অর্থ-সম্পদের পাশাপাশি মোবাইল সেটটিও ছিনিয়ে নেওয়া হয়। আর সুত্র বলছে এসকল খোয়া যাওয়া মোবাইল সেটের সুত্র ধরে খুব সহজেই পৌছে যাওয়া যায় অপরাধী চক্রের কাছে। আবার প্রযুক্তির সাহায্যে অপরাধী চক্রের কাছে পৌছানো গেলে কেন দমন করা যাচ্ছে না অপরাধীদের এবিষয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অবহেলাতেই দিনের পর দিন এসকল অপরাধের মাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে নাকি অপরাধী চক্রের কৌশলের কাছে ব্যর্থ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তা স্পষ্ট নয়। আর এসকল অপরাধের মাত্রা বৃদ্ধির নেপথ্যের কারন যাই হোক না কেন অনতিবিলম্বে এসব অপরাধী চক্র দমনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আরও সচেষ্ট না হলে দিনের পর দিন এসকল অপরাধের মাত্রা শুধুই বৃদ্ধি পাবে। সর্বস্ব খুইয়ে পথে বসবে হাজারো মানুষ। অনাকাঙ্খিতভাবে প্রান হাড়াবে অনেকে।