যেভাবে কোচ টিটে ব্রাজিলকে আধুনিক যুগে নিয়ে এলেন

    ৯ জুলাই, ২০১৪। নেদারল্যান্ডসকে পেনাল্টি শুট-আউটে হারিয়ে আর্জেন্টিনা ফাইনালে গেছে। কিন্তু আগের দিনের সেমিফাইনালের ফলাফল নিয়ে বিস্ময় তখনও কাটেনি।
    আয়োজক দেশ ব্রাজিল ৭-১ গোলে হেরেছে জার্মানির কাছে। কী হবে এখন?
    “ব্রাজিল কি এবার তাদের ফুটবলের আগা-পাছ-তলা পরিবর্তন করবে?” মার্ক চ্যাপম্যান জিজ্ঞেস করেছিলেন।আমার জবাব ছিল- “আমি তাই মনে করি।” কিন্তু সেইসাথে আমার আশঙ্কা ছিল ১০ দিন পর শোকের ধাক্কা কাটলে, যা ছিল তাই-ই থেকে যাবে।এবং বাস্তবে আমার সেই আশঙ্কাই সত্যে পরিণত হয়েছিল।

    আবারো ডুঙ্গার হাতে ব্রাজিল
    বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পরপরই সাবেক মিডফিল্ডার ডুঙ্গাকে নতুন করে কোচ হিসাবে নিয়োগ করা হলো।২০০৬ সালে থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত তিনি ব্রাজিল দলের দায়িত্বে ছিলেন। এর আগে, তার আর একটি মাত্র অভিজ্ঞতা ছিল -ব্রাজিলের ক্লাব ইন্টারন্যাসিওনালের কয়েকমাসের কোচের দায়িত্ব। কিন্তু সেখানে তার সাফল্য কিছু ছিলনা।

    ২০১৮ সালের বিশ্বকাপের কোয়ালিফিকেশন রাউন্ডে ডুঙ্গার প্রধান বুলি ছিল – ‘কীভাবে শিখতে হয়, আমি তা শিখেছি।’খোল-নলচে পাল্টে ফেলার মত সংস্কারক ছিলেন না ডুঙ্গা। তার নিয়োগ ছিল অনেকটা বাস্তবতাকে অস্বীকার করার সামিল।ব্রাজিলিয়ান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের ভাবটা ছিল এমন – আমাদের যদি ক্রমাগত আক্রমণ করা হয়, তাহলে আমরা ডুঙ্গার পেছনেই থাকবো।

    ডুঙ্গারও ভাবটা ছিল যে সমস্ত বিশ্ব তার পেছনে লেগেছে এবং সেও ছেড়ে কথা বলবে না, আগুনের জবাব আগুন দিয়েই দেবে।দু বছর পর যখন ২০১৮ বিশ্বকাপের কোয়ালিফাইং রাউন্ডের এক-তৃতীয়াংশ শেষ, ব্রাজিল তখন ছয় নম্বরে অর্থাৎ পরিস্থিতির উন্নতি না হলে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে তাদের যাওয়া হবেনা।ভয় ঢুকলো যে প্রতিটি বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার রেকর্ড থেকে ছিটকে পড়তে পারে ব্রাজিল।

    চাপে পড়ে গেলেন ডুঙ্গা। তার ভরসা ছিল রিও অলিম্পিকস। যদি তিনি সেখানে দলকে সোনা জেতাতে পারেন, তাহলে হয়ত তার অবস্থান কিছুটা শক্ত হবে, কিছুটা সময় তিনি পাবেন।হয়তো বা সেটা হতো। কিন্তু অলিম্পিকের ঠিক আগে কোপা আমেরিকার শততম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে এই টুর্নামেন্টের একটি বাড়তি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় যুক্তরাষ্ট্রে ।

    ডুঙ্গার ব্রাজিল সেখানে একুয়েডরের সাথে ড্র করে এবং পেরুর কাছে হারে গ্রুপ পর্যায় থেকে ছিটকে যায়। সেই সাথে কোপ পড়ে ডুঙ্গার ওপর। তার জায়গায় কোচ হিসাবে আসেন করিন্থিয়ানস্‌ ক্লাবের কোচ টিটে। ২০১৪ সালেও তিনিই ছিলেন ফেভারিট। দেরিতে হলেও তিনি চাকরিটা পেলেন।

    তারপর সবকিছুই ইতিহাস।দলে কিছু অদল-বদল করা হলো। চীনা লীগ থেকে পলিনিওকে ডেকে আনা হলো। সমালোচনা হলেও, পরে সিদ্ধান্ত সঠিক বলে প্রমাণিত হয়। সেন্টার ফরোয়ার্ড পজিশনে দুর্বলতা কাটাতে তরুণ গ্যাব্রিয়েল জেজুজকে নিয়ে ঝুঁকি নিলেন টিটে। সাথে সাথেই ফল পেলেন।মাত্র দু-তিনটি পরিবর্তন এনেই টিটে ভালো ফল পেতে শুরু করলেন।

    বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই না করার যে হুমকি তৈরি হয়েছিল, তা কেটে গেল। টিটে’র ব্রাজিল ১০টি ম্যাচ জিতলো, দুটো ড্র করলো, ৩০টি গোল দিল, গোল খেল মাত্র তিনটি। তারপর ইউরোপিয়ান বিভিন্ন দলের সাথে প্রীতি ম্যাচ গুলোতেও সেই সাফল্যের ধারা অব্যাহত রইল।

    কীভাবে পারলেন টিটে?স্বভাবতই প্রশ্ন উঠলো- কীভাবে একজন ব্যক্তি এই পার্থক্য তৈরি করতে পারলেন?
    দুটো উত্তর – টিটের সন্দেহাতীত যোগ্যতা ছাড়াও তার পূর্বসূরি কয়েকজনের দুর্বলতা এবং সেইসাথে ব্রাজিলের ফুটবলের দুর্দশার শেষ প্রান্তে গিয়ে ঠেকা।ব্রাজিলের ফুটবল অকস্মাৎ সর্বশ্রেষ্ঠ তকমা নিয়ে জন্ম নেয়নি। একটি প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়েই সুনাম এবং খ্যাতি অর্জিত হয়েছিল। ১৯৫৮ সাল থেকে ১৯৭০ এর মধ্যে তিনটি বিশ্বকাপ জয়ের পেছনে তাদের যে প্রস্তুতি এবং কৌশল ছিল, তা অন্যদের চেয়ে অনেক অগ্রসর ছিল।

    ১৯৫৮ সালেই ব্রাজিল দলে বিরাট সংখ্যায় সাপোর্ট-স্টাফ ছিল – ডাক্তার, ডেন্টিস্ট, ফিজিও, এমনকি ক্রীড়া বিষয়ক একজন মনোবিজ্ঞানী।ব্রাজিলের অন্যতম কিংবদন্তি মারিও জাগালোকে – যিনি ১৯৫৮ এবং ১৯৬২ সালের দলে খেলোয়াড় ছিলেন এবং পরে ১৯৭০ এ ব্রাজিলের কোচ ছিলেন – যখন আমি বলেছিলাম যে ১৯৬২ সালে চিলির বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড একজন ডাক্তার ছাড়াই গিয়েছিল, শুনে চেয়ার থেকে পড়ে যাওয়ার জোগাড় হয়েছিল তার।
    এছাড়া, উরুগুয়ে, আর্জেন্টিনা এবং হাঙ্গেরি থেকে আসা কোচদের ধ্যান-ধারণা নিজেদের কৌশলের সাথে যোগ করে নতুন এক ফুটবল স্টাইল তৈরি করেছিল ব্রাজিল।

    চারজনের রক্ষণভাগের সূচনা করেছিল তারা। ১৯৫৮ সালে ব্রাজিল যখন রক্ষণভাগের নতুন সেই স্টাইল প্রবর্তন করলো, সেমিফাইনালের আগে তারা কোনো গোলই খায়নি। ১৯৭০ সালে এসে আরেক ধাপ এগিয়ে ব্রাজিল ফুটবলে প্রথমবারের মতো ৪-২-৩-১ পদ্ধতি চালু করেছিল।

    কিন্তু ধারাবাহিকভাবে অসামান্য সাফল্যে ব্রাজিলের ফুটবলে আলস্য এবং অতিমাত্রায় আত্মবিশ্বাস জেঁকে বসে। ব্রাজিলিয়ানরা বিশ্বাস করতে শুরু করে যে ফুটবলে মেধা তাদের মজ