ফেসবুক বা যে কোনও সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট খুললেই বিভিন্ন বিজ্ঞাপণ দেখতে পাওয়া যায়। সেখানে অনেকেই ‘বন্ধু’ বা বিশেষ করে ‘প্রেমিকা’ চাই বলে আবেদন জানান।

অনেক ছেলের জীবনেই মেয়ে বন্ধুর সংখ্যা কম থাকে। তার কারণ, অনেকে মেয়েদের সঙ্গে স্বচ্ছন্দ বোধ করেন না, মেয়েদের সঙ্গে মিশতে দ্বিধা বোধ করেন, মেয়েদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে ভয় পান।

এরকম আরও অনেক কারণের জন্য অনেক ছেলেরই মেয়ে বন্ধুর সংখ্যা কম থাকে। অথচ তারা মেয়েদের সঙ্গে বন্ধুত্বও করতে চান।

একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, কম বয়সে ছেলেরা সহানুভূতি পূর্ণ মেয়েদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে পছন্দ করেন। আবার মেয়েরাও এরকমই ছেলে পছন্দ করেন।

কিন্তু সমীক্ষকদের একাংশ জানিয়েছেন, মেয়েদের ক্ষেত্রে এই গুণগুলি বেশিরভাগ ছেলেকে আকৃষ্ট করে।

এই প্রসঙ্গে তারা আরও জানান, সমাজে বসবাস করতে গেলে বন্ধুত্বের খুবই প্রয়োজন হয়। সঠিক বন্ধু খুঁজে পাওয়াটাও বেশ সমস্যা হয় সেক্ষেত্রে। একে অপরের সঙ্গে মেলামেশা করতে করতে বন্ধুত্ব গভীর হয়। বন্ধুদের মধ্যে তাই একটা আবেগেরও প্রয়োজন হয়, যে তার অনুভূতিগুলোকে সম্মান করবে। তাই বন্ধু পেতে গেলে বন্ধুদের অনুভূতিগুলিকে সম্মান করারও খুব প্রয়োজন।

বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে সমীক্ষকদের পরামর্শ, আপনি তখনই আপনার বন্ধুদের মধ্যে প্রিয় হয়ে উঠতে পারবেন, যখন আপনি আপনার বন্ধুদের মনের কাছাকাছি যেতে পারবেন। তাই যাদের জীবনে বন্ধুর অভাব, তারা অবশ্যই বন্ধুত্বের নিয়মগুলো মেনে চলুন। অনুভূতি বন্ধুত্বের মধ্যে একটি সেতুর কাজ করে। তাই বন্ধু পেতে গেলে আগে সেই সেতুটি তৈরি করুন।