মামলা থেকে রেহাই পেতে সরকারের সঙ্গে দরকষাকষি করছে খালেদা

0
16
print

খালেদা জিয়া নির্বাচন বানচালালের পাশপাশি মামলা থেকে রেহাই পেতে সরকারের সঙ্গে দরকষাকষি করছে। তারেক জিয়ার মামলা, নিজের দুর্নীতির মামলাসহ যুদ্ধপরাধীর মামলা প্রত্যাহার করতে তিনি এখন উঠে পড়ে লেগেছেন। তাঁকে ক্ষমতা থেকে বাহিরে রাখতে হবে। স্বাধীনতা পক্ষের শক্তিকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে। এই জন্য জাসদের হাতকে শক্তিশালীর পাশপাশি সকল মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ময়মনসিংহের নান্দাইলের চন্ডীপাশা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে জাসদ আয়োজিত এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল ইনু এমপি এ কথাগুলি বলেন।

তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে একবার স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি ও আরেকবার স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ক্ষমতায় এসেছে। এই ধারাবাহিকতা বন্ধ করতে হবে। উগ্রবাদী, জঙ্গিবাদ ও রাজাকাররাই একটি দেশের সভ্যতা এবং গণতন্ত্র হত্যায় মেতে উঠে-এটা বলারও তেমন দরকার পড়ে না। তথ্যমন্ত্রী ইনু খালেদা জিয়াকে খুনি আখ্যায়িত করে বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার চমৎকার উন্নয়নের সরকার। তার ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হবে। অন্যথায় দেশ ধ্বংস হয়ে যাবে। তিনি বলেন, ৭৫-এর পরে জিয়াউর রহমান সাম্প্রদায়িক বীজ রোপণ করে গেছেন। সেই বীজ বৃক্ষ খালেদা জিয়াকে রুখে দাঁড়াতে হবে। যতদিন খালেদা থাকবে ততদিন জঙ্গি উৎপাদন হবে, রাজাকার থাকবে, দেশে অশান্তি বিরাজ করবে। খালেদা জিয়া জঙ্গি বানানোর কারখানা। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া জাতীর পিতাকে মানে না, ২৫ মার্চ কালোরাত্রি মানে না, মুক্তিযুদ্ধ মানে না, ৩০ লাখ শহীদ মানে না এবং সংবিধানের চার নীতি মানে না। যিনি এসব মানেন না তিনি রাষ্ট্রবিরোধী, পাকিস্তানের দালাল। তাঁকে হঠাতে হবে। এই জন্য বর্তমান ১৪ দলীয় জোট সরকারকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, জনসভা আয়োজনের মুল উদ্দেশ্য ছিল ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে জেলা জাসদের সভাপতি অ্যাডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমেদের নাম ঘোষণা করবেন হাসানুল হক ইনু। কিন্তু তাঁর ২৪ মিনিটের বক্তব্যে নান্দাইল আসনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে সরাসরি কারও নাম ঘোঘণা করেননি। তবে তিনি একাধিকবার আওয়ামী লীগ ও জাসদের সুদৃঢ় ঐক্য কামনা করেন। তবে দলটির কেন্দ্রীয় একাধিক নেতা আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে অ্যাডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমেদের নাম প্রস্তাব করেন। তারই ধারাবাহিকতায় হাসানুল হক ইনু বলেন, রাজনীতিতে অ্যাডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমেদের মতো ভালো মানুষের প্রয়োজন আছে। না-হলে সাধারণ মানুষ বার বার সরকারের সুফল পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে।

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, জাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি মো. শফিউলস্নাহ শফি, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শওকত রায়হান, রতন সরকার, শ্রমিক জোটের সাধারণ সম্পাদক নাইমুল হাসান, জেলা জসদের সভপাতি অ্যাডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, ময়মনসিংহ মহানগর জাসদের সভাপতি সৈয়দ শফিকুল ইসলাম, জেলা জাসদের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক অ্যাড মো. নজরুল ইসলাম, নান্দাইল জাসদের সভাপতি পিকলু কুমার সাহা প্রমুখ। সভায় বিভিন্ন উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে মিছিল করে জাসদের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা জনসভায় যোগ দেন।

এর আগে দুপুর ১টার দিকে নান্দাইল চন্ডীপাশা এলাকায় অবস্থিত জেলা পরিষদ ডাকবাংলোতে মাননীয় তথ্যমন্ত্রীকে স্বাগত জানান, ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসনের সাংসদ মো. আনোয়ারুল আবেদিন খান। এ সময় নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. হাফিজুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহমুদা আক্তারসহ পুলিশের উচ্চপদস্থ ও স্থানীয় কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY