এস এম আলতাফ হোসাইন সুমন লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি ঃ

সকালে জামাই এসে মেলা থেকে বড় বড় মাছ কিনে নিয়ে যাবে শ্বশুর বাড়ি। দুপুরে খেয়ে বিকেলে আবার যাবেন পিঠা মেলায়। এ জন্য লালমনিরহাটে দ্বিতীয়বারের মতো বসেছে বউ জামাই মেলা।

শুক্রবার (২২ ডিসেম্বর) সকাল ১১টার দিকে লালমনিরহাট সদর উপজেলার বড়বাড়ি শহীদ আবুল কাসেম মহাবিদ্যালয় মাঠে পাঁচ দিনব্যাপী এই বউ-জামাই মেলার উদ্বোধন করেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক উপমন্ত্রী অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলু।

একই মাঠে বিকেলে নানান রকম পিঠা নিয়ে বসবে পিঠা মেলাও। সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সবার জন্য বিনা টিকিটে খোলা থাকছে পুরো আয়োজন। বিনোদনের জন্য বাড়তি আয়োজন হিসাবে রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন স্থান থেকে বড় বড় মাছ এনেছেন মেলায়। বেশ দামও হাঁকাচ্ছেন তারা। ক্রেতারাও চাহিদা ও সার্মথ্য অনুযায়ী দাম কষে যাচ্ছেন।

মৎস আড়ৎ সুদূর চট্টগ্রাম থেকে নিয়ে এসেছে ২৩ কেজি ওজনের কোরাল, ১৫ কেজি ওজনের বোয়াল, ১০ কেজির ওজনের রুই-কাতলসহ বিভিন্ন জাতের মাছ। এমনই একটি স্টলের মাছ বিক্রেতা নুরুল ইসলাম জানান, কোরাল মাছটি ৪৫ হাজার টাকা দাম হাঁকানো হয়েছে। ৩৮/৪০ হাজার পর্যন্ত উঠলে বিক্রি করা হবে।

মেলার মৎস্য আড়তে ১৫ কেজি ওজনের গ্রাসকার্প মাছটি ক্রেতাদের দৃষ্টিতে আসছে। বাজেট অনুযায়ী দাম কষে যাচ্ছেন ক্রেতারা। বিক্রেতা বিরুদাস মাছের দাম হাঁকাচ্ছেন ২৫ হাজার টাকা। ২২ হাজার টাকা হলে বিক্রি করবেন বলে জানান তিনি।

ক্রেতা সাইদুল ইসলাম বলেন, বউয়ের বায়না মেটাতে শ্বশুর বাড়ি এসে বউ জামাই মেলায় এসেছি। এখান থেকে শ্বশুর বাড়ির জন্য তিন হাজার ৬৫০ টাকা দামে ছয় কেজি ওজনের কাতল মাছ কিনেছি। এ মাছ দিয়ে ভাত খেয়ে আবার বউ নিয়ে বিকেলের পিঠা মেলায় আসবো।

স্থানীয় ক্রেতা কৃষক আঃ সামাদ, ফয়েজ, ও মসলেম মিয়া জানান, অনেক দিনের শখ বড় মাছ খাওয়ার। তাই গ্রামের কয়েকজন মিলে মাছ কিনতে মেলায় এসেছেন।

স্থানীয় বউ-জামাই মেলা উদযাপন পরিষদের আয়োজনে মৎস্য মেলায় ২২টি স্টল স্থান পেয়েছে। পিঠা মেলায় স্টল রয়েছে প্রায় ৫১টি।