ভুল আলট্রাসনোগ্রাম রিপোর্টে প্রাণ গেল নবজাতকের

আসাদ তালুকদারঃ নেত্রকোনা সদরের হাওর ডায়াগনস্টিক ও হাসপাতালে ভুল রিপোর্টে প্রাণ গেল এক নবজাতকের। সীমা রানী দত্ত নামে এক ভুক্তভোগী নারী নেত্রকোনা জেলা সিভিল সার্জন বরাবর সোমবার (২৭ আগস্ট) এ অভিযোগ করেন।
অভিযোগে জানা যায়, গত ২৪ আগস্ট নেত্রকোনা জেলা সদরের হাওর নামে এক অখ্যাত হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশন করেন সদর থানার ঠাকুরাকোনার দত্তগ্রামের উজ্জল চন্দ্র দত্তের স্ত্রী সীমা রানী দত্ত। অপারেশন করেন ডাক্তার জীবন কৃষ্ণ সরকার। অপারেশন টেবিলে নবজাতকের কোন চিকিৎসা না দিয়েই তাড়াহুড়ো করে বেড়িয়ে যান। পরে নবজাতকের অবস্থা বেগতিক দেখে নেত্রকোনা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায় স্বজনরা। সেখান থেকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার রেফার্ড করেন কর্তব্যরত ডাক্তার। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার (২৭ আগস্ট) সকালে মৃত্যু হয় নবজাতকের। এর আগে গত ২০ শে জুলাই ও ২৪ আগষ্ট সিটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পৃথক দুটি আলট্রাসনোগ্রামে রোগীর শারীরিক অবস্থা ও বাচ্চার ওজনে অসামনঞ্জস্যতা দেখা দেয়। যা রোগীনি নিরক্ষর হওয়ায় বুঝতে পারেননি। রিপোর্টে অন্য রোগীর নাম কম্পিউটার কম্পোজে লেখা যা পরে কলমের কালি দিয়ে কাটা।

রোগীর স্বজনরা আক্ষেপ করে বলেন, মাত্র পাঁচমিনিট সময় ডাক্তার ছিলেন, এরমধ্যেই অপারেশন করে বেড়িয়ে পরে সে। আমরা নবজাতককে দেখার কথা বললে সে বলে আমার আরো ১০ টা সিজার এখনো বাকী। অন্যনামে ভুল রিপোর্ট দিয়ে অপারেশন এর কারনেই নবজাতকের মৃত্যু ঘটেছে।
আমরা এই দায়িত্বে অবহেলা ও নবজাতক হত্যার বিচার চাই।
লিখিত অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে নেত্রকোনার ডেপুটি সিভিল সার্জন নিলোৎপল তালুকদার জানান, আমরা বিষয়টা দেখছি।