অনলাইন ডেস্ক

সেই পুরনো রোগ পেয়ে বসেছে বাংলাদেশকে। দারুণ শুরুর পর ছন্দপতন। ঘুরে দাঁড়াতে না দাঁড়াতে ফের উইকেট পতনের মিছিল। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে দুর্দান্ত শুরুই করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু দারুণ শুরুর পর তামিম ও সাব্বির রহমানের বিদায়ে ছন্দপতন ঘটে বাংলাদেশের। এরপর সৌম্য সরকার ও মুশফিকুর রহীমের ব্যাটে ম্যাচে ফিরে আসে টাইগাররা। কিন্তু পরপর সৌম্য ও সাকিবের বিদায়ে চাপের মুখে রয়েছে মাশরাফির দল।

ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শুরুটা দুর্দান্তই হয়েছিল বাংলাদেশের। তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকারের সাবলীল ব্যাটে বড় স্কোরের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে টাইগাররা। তবে এক ওভারের ব্যবধানে তামিম ও সাব্বির রহমানের বিদায়ে ছন্দপতন ঘটে বাংলাদেশের। সেখান থেকে সৌম্য ও মুশফিকুর রহীম মিলে বাংলাদেশকে কক্ষপথে ফেরান। দারুণ লড়াকু এক ইনিংস খেলে সৌম্য ফিরে গেলেও চাপ কাটিয়ে ওঠে মাশরাফির দল।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৩০ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৩৬ রান। মুশফিক ৩৭ ও মাহমুদউল্লাহ ৩ রান নিয়ে ব্যাট করছেন। তামিম ২৩, সাব্বির ১, আট ম্যাচ পর ফিফটি করা সৌম্য ৬১ ও সাকিব ৬ রান রান করে সাজঘরে ফেরেন।

উদ্বোধনী জুটিতে ৭৭ রান তোলেন তামিম ও সৌম্য। দলীয় ৭৭ রানের মাথায় ক্যাচ আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন তামিম। মিচেল স্যান্টনারের করা পরের ওভারে বোল্ড হয়ে মাঠ ছাড়েন সাব্বির।

সাব্বির ও তামিমের বিদায়ে বেশ চাপের মুখে পড়েছিল বাংলাদেশ। সেখান থেকে ৩৮ রানের জুটি গড়ে টাইগারদের চাপমুক্ত করেন সৌম্য-সাকিব। দলীয় ১১৭ রানের মাথায় বল আকাশে তুলে দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন সৌম্য। কিছুক্ষণ পর মিড-অফে জিমি নিশামকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন সাকিব।

স্লো-ওভার রেটের কারণে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ছিলেন মাশরাফি। যে কারণে শুক্রবার আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে খেলতে পারেননি তিনি। নিষেধাজ্ঞা শেষে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অধিনায়ক হয়েই ফিরেছেন মাশরাফি।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাওয়ে কিংবা নিরপেক্ষ ভেন্যুতে ওয়ানডে ম্যাচে এখনো কোনো জয় পায়নি বাংলাদেশ। ডিসেম্বরে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তিন ম্যাচ সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে টাইগাররা। আয়ারল্যান্ডের মাটিতে সেই হতাশা কাটানোর লক্ষ্যে মাঠে নেমেছে মাশরাফির দল।

ত্রিদেশীয় সিরিজে প্রতিটি দল একে অন্যের বিপক্ষে দুবার করে লড়বে। তিন জাতি সিরিজ শেষে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সামনে রেখে ২৫ মে ইংল্যান্ডের বিমান ধরবে বাংলাদেশ। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির উদ্বোধনী ম্যাচে ১ জুন স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলবে টাইগাররা। গ্রুপে মাশরাফিদের অপর দুই প্রতিপক্ষ হলো অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহীম, সাকিব আল হাসান, মোসাদ্দেক হোসেন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাসকিন আহমেদ, মাশরাফি বিন মুর্তজা ও মোস্তাফিজুর রহমান।

নিউজিল্যান্ড একাদশ: লুক রনকি, টম ল্যাথাম, জর্জ ওর্কার, রস টেলর, নেইল ব্রম, জেমস নিশাম, কলিন মুনরো, হামিশ বেনেট, মিচেল স্যান্টনার, ইশ সোধি ও শেঠ রাঁচি।