নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অবস্থা দেখতে কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড বাংলাদেশ সফরে আসছেন। আগামী মে মাসের প্রথম সপ্তাহে তিনি বাংলাদেশ সফরে আসবেন বলে জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম গ্লোব অ্যান্ড মেইল।

সফরকালে ফ্রিল্যান্ড কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন বলে জানিয়েছে দেশটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ফ্রিল্যান্ডের সঙ্গে মিয়ানমারে নিযুক্ত কানাডার রাষ্ট্রদূত বব রের বাংলাদেশ সফর করার কথা রয়েছে। তবে এই সফরে ফ্রিল্যান্ড মিয়ানমার সফরে যাচ্ছেন না বলে নিশ্চিত করেছেন দেশটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

টরেন্টোর একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্কের শিক্ষক জন কিরটন জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা সংকটকে ফ্রিল্যান্ড ব্যক্তিগত কূটনৈতিক তৎপরতার মূলে রেখেছেন।

ঘটনার শুরু গত ২৪ আগস্ট দিনগত রাতে রাখাইনে যখন পুলিশ ক্যাম্প ও একটি সেনা আবাসে বিচ্ছিন্ন সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। এর জেরে ‘অভিযানের’ নামে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী নিরস্ত্র রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ-শিশুদের ওপর নির্যাতন ও হত্যাযজ্ঞ চালাতে থাকে। ফলে লাখ লাখ মানুষ সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য চলে আসে। নির্যাতনের মুখে এখন পর্যন্ত প্রায় ১১ লাখের বেশি বিতাড়িত রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়া আগে থেকেই রয়েছে আরও কয়েক লাখ।

শুরু থেকেই রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশের পাশে রয়েছে কানাডা। রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা ও অত্যাচার বন্ধ করে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া শরণার্থীদের নিরাপদে সম্মানের সঙ্গে দেশে ফিরিয়ে আনার দাবি জানাচ্ছে কানাডা। রোহিঙ্গারাও ফিরে গেলে যেন নিপীড়ন থেকে মুক্ত থাকে এবং আইনে থাকা সব ধরনের অধিকার ভোগ করতে পারে, এটি নিশ্চিত করতে মিয়ানমারকে অনুরোধ জানিয়েছে দেশটি।