পুষ্টি গুণে সমৃদ্ধ মিষ্টি কুমড়ার জুস ওজন কমায়

বিভিন্ন পুষ্টি গুণে সমৃদ্ধ মিষ্টি কুমড়া খেতেও সুস্বাদু।।এর বীজও স্বাস্থ্যের জন্য দারুন উপকারী।এটি তরকারি, ভাজি, সবজি সবভাবেই খাওয়া যায়। মিষ্টি কুমড়ায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও খনিজ রয়েছে। এছাড়া এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ ভিটামিন সি-ও বিদ্যমান। মিষ্টি কুমড়া ওজন কমাতে সাহায্য করে। বিশেষ করে এর তৈরি জুস বা রস ওজন কমাতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে।এটি তৈরির পদ্ধতিও বেশ সহজ। মিষ্টি কুমড়া ছোট ছোট টুকরা করে কেটে ব্লেন্ডারে দিন। সামান্য পানি দিন। এখন এতে পরিমাণ মতো চিনি মিশিয়ে খেতে পারেন। তবে চিনির পরিবর্তে মধু খেলে এটি বেশি কার্যকর হবে। মিষ্টি কুমড়ার জুস শরীরের জন্য যে কারণে উপকারী-

১. মিষ্টি কুমড়ায় খুব কম পরিমাণে ক্যালরি রয়েছে। ১০০ গ্রাম মিষ্টি কুমড়ায় ক্যালরি পাওয়া যাবে মাত্র ২৬। মিষ্টি কুমড়ার জুস খেলে তা শরীরে বাড়তি ক্যালরি জমা হতে বাঁধা দেয়।

২. ১০০ গ্রাম মিষ্টি কুমড়ায় দশমিক ১ গ্রাম ফ্যাট থাকে। এ কারণে এটাকে ফ্যাটবিহীন সবজি বলা হয়। সাধারণত ব্যায়ামের পরে মিষ্টি কুমড়ার জুস খেলে তা দারুন কাজ করে।

৩. মিষ্টি কুমড়ার জুস হজমে সহায়তা করে। সেই সঙ্গে কোষ্টকাঠিন্য কমায়।

৪. মিষ্টি কুমড়ার জুসে থাকা ভিটামিন সি ও বিটা ক্যারোটিন যেকোন ধরনের প্রদাহ কমায় যা ওজন কমাতে ভূমিকা রাখে। এছাড়া এতে থাকা ভিটামিন সি যেকোন ধরনের সংক্রমনও কমায়।

৫. ঘুমের সঙ্গে শরীরের ওজন বৃদ্ধি সম্পর্কিত। সাধারণত কম ঘুম হলে ওজন বাড়ে। মিষ্টি কুমড়ার জুস ভাল ঘুম হতে সাহায্য করে। রাতে ঘুমানোর আগে মিষ্টি কুমড়ার জুসের সঙ্গে যদি মধু মিশিয়ে খাওয়া যায় তাহলে তা ভাল ঘুমের সহায়ক হিসেবে কাজ করে।