পুলিশি ‘হয়রানিতে’ পোলিং এজেন্ট পাল্টাতে হচ্ছে, দাবি বিএনপির

Smiley face

পুলিশী হয়রানির কারণে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মেয়র প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট পাল্টাতে হচ্ছে বলে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করেছে সংসদের বাইরে থাকা বিরোধী দল বিএনপি।
তাদের দাবি, বিএনপি প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুর পোলিং এজেন্ট যাদের করা হয়েছে তাদেরকে নানা ধরণের হুমকি ধামকি দেওয়া হচ্ছে। নারী এজেন্টদের নারী পুলিশ হুমকি দিচ্ছে।
রোববার বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল নির্বাচন ভবনে গিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে দেখা করে এসব অভিযোগ তুলে ধরে।
পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।
তিনি বলেন, নির্বাচনে বিএনপির এজেন্টদের বাড়ি গিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা হয়রানি করছে। তারা যাতে এজেন্ট না হয় সেজন্য হুমকি ধামকি দিচ্ছে। তাদেরকে এজেন্ট না হওয়ার জন্য ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। এতে করে অনেকেই ভয়ে পোলিং এজেন্ট হতে চাচ্ছে না। যার কারণে শেষ সময়ে এজেন্ট পরিবর্তন হচ্ছে।
তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন সংবিধানিক প্রতিষ্ঠান, স্বাধীন প্রতিষ্ঠান। বিএনপি সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে কমিশনের অবাধ ক্ষমতার প্রয়োগ দেখতে চায়।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, এর আগে ১০ মে কমিশনের কাছে বিএনপি পুলিশি গ্রেফতার বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছিল। কিন্তু তা বন্ধ হয়নি বরং গত কয়েক দিনে এই হয়রানি আরো বেড়েছে।
শনিবার সন্ধ্যা থেকে রোববার বিকেল পর্যন্ত ২১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলেও তিনি দাবি করেন।
নিএনপির এই নেতা বলেন, কতিপয় পুলিশের কর্মকাণ্ড সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের অন্তরায়।
বিএনপির প্রতিনিধি দলে আরও উপস্থিত ছিলেন দলের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ শাজাহান, যুগা্ম মহাসচিব ব্যরিস্টার মাহবুবউদ্দীন খোকন ও বিএনপির চেয়ারপার্সনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান প্রমুখ।