পদদলনে ১০ জনের মৃত্যু: কেএসআরএম এমডির বিরুদ্ধে মামলা

সোমবার দুপুরে (১৪মে) চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় ইফতার সামগ্রী বিতরণের সময় ভিড়ের মধ্যে পদদলনে ১০জন নিহতে হওয়ার ঘটনায় অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগে উদ্যোক্তা কেএসআরএমের মালিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।
মঙ্গলবার (১৫মে) সকালে সাতকানিয়া থানায় খাগরিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা নিহত হাসিনা আক্তারের স্বামী মোহাম্মদ ইসলাম বাদি হয়ে মামলাটি করেন বলে সাতকানিয়া থানার ওসি রফিকুল হোসেন জানিয়েছেন। তিনি বলেন, অবহেলা জনিত মৃত্যুর অভিযোগ এনে দণ্ডবিধির ৩০৪ (ক) ও ৩৪ ধারায় কেএসআরএমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. শাহজাহানের নাম উল্লেখ করে ইফতার ও যাকাত সামগ্রী বিতরণ ব্যবস্থাপনার সাথে সম্পৃক্ত অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে মামলাটি করা হয়েছে।

সোমবার সাতকানিয়ার নলুয়া ইউনিয়নের পূর্ব গাটিয়াডেঙ্গা (হাঙ্গরমুখ) এলাকার কাদেরীয়া মুঈনুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার মাঠে কেএসআরএমের মালিকের পক্ষ থেকে ইফতার সামগ্রী বিতরণের সময় ভিড়ের চাপে নয়জন নারী নিহত হয়। ঘটনার পরপর পুলিশ ও কেএসআরএমের পক্ষ থেকে হিট স্ট্রোকে হতাহতের ঘটনার কথা বলা হলেও উপজেলা প্রশাসন আয়োজনের ত্রুটিতে পদদলনের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে। এর আগে ২০০৫ সালের ৭ অক্টোবর একই স্থানে প্রতিষ্ঠানটির ইফতার বিতরণে আট মহিলা মৃত্যু হয়েছিল।

উল্লেখ্য, গতকাল সোমবার চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলায় কেএসআরএম শিল্প গ্রুপের বিতরণ করা ইফতারি পণ্যসামগ্রী নিতে গিয়ে চাপে পড়ে পদদলিত হয়ে ১০জন মারা যান। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ছয়জনের পরিচয় মিলেছে। তাঁরা হলেন- হাসিনা আক্তার (৩০), নূর আয়েশা (৫০), রিনা বেগম (২০), কুন্তুনী বেগম (১৩), রশিদা আক্তার (৫৪) ও জ্যোৎস্না বেগম (২৫)। হাসিনা আক্তার, রিনা বেগম, রশিদা আক্তারের বাড়ি সাতকানিয়ায়। নূর আয়েশা বান্দরবান জেলার সুয়ালক এলাকা থেকে এসেছিলেন। এছাড়া কুন্তুনী বেগম ও জ্যোৎস্না বেগমের বাড়ি চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায়।