বাণিজ্য নীতি নিয়ে ডেমোক্রেট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের কঠোর সমালোচনা করেছেন প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, হিলারি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে বাণিজ্য ব্যবস্থাপনা হবে অত্যন্ত বাজে। আর তাই যুক্তরাষ্ট্রের উচিত ‘এখনই নির্বাচন বাতিল করা’ এবং তাকেই বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা।

ওহাইওর টোলেডোতে সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখতে গিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার এসব কথা বলেন ট্রাম্প। আজ শুক্রবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।

এ সময় ট্রাম্প বলেন, হিলারি ক্লিনটনের স্বামী সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন নর্থ আমেরিকান ফ্রি ট্রেড এগ্রিমেন্ট সই করেছিলেন। ওই চুক্তি সইয়ের ফলে ওহাইও থেকে হাজার হাজার চাকরি চলে যায় মেক্সিকোতে। তিনি ৮ই নভেম্বরের নির্বাচনে জিতলে এভাবে শ্রমবাজারের স্থানান্তর ঠেকিয়ে দেবেন।

তিনি বলেন, আমাদের উচিত এখই নির্বাচন বাতিল করা এবং ট্রাম্পকে বিজয়ী ঘোষণা করা। ঠিক? আমরা এখনও কেন নির্বাচন করছি? তার (হিলারি) নীতি অত্যন্ত বাজে।’

ট্রাম্প আরও বলেন, হিলারি এখন ওবামার সই করা ১২ জাতির ট্রান্স প্যাসিফিক পার্টনারশিপের বিরোধিতা করলেও নির্বাচিত হলে ঠিক ওই চুক্তি বাস্তবায়নের পথ খুঁজবেন।

নির্বাচনী প্রচারণায় নানা ধরনের বিতর্কের মুখেও সমর্থকদের মধ্যে নিজের অবস্থানকে সংহত করতে গিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীর সমালোচনায় নেমেছেন ট্রাম্প। সম্প্রতি তার একটি ভিডিও ফাঁস হয়েছে যাতে তিনি নারীদের অশালীনভাবে জড়িয়ে ধরা ও তাদের আকৃষ্ট করার কথা নিজ মুখেই স্বীকার করেছেন। তৃতীয় মেলানিয়া ট্রাম্পকে বিয়ের কিছুদিনের মধ্যেই ওই ভিডিওটি ধারণ করা হয়। ওই ভিডিও ফাঁসের পর অনেক নারীই অভিযোগ এনেছেন ট্রাম্পের বিরুদ্ধে। তারা অভিযোগ করছেন, ট্রাম্প তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে অশালীনভাবে আলিঙ্গন করেছে, শরীরের স্পর্শকাতর স্থানগুলোতে স্পর্শ করেছে, চুম্বন করেছে। ট্রাম্প এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

গতকাল ট্রাম্প বলেন, ওই টেপ ফাঁস হয়ে যাওয়ার ঘটনা ‘নিশ্চিতভাবেই বেআইনি’। এনবিসি নেটওয়ার্ক ওই টেপ ফাঁস করে। ট্রাম্প তাই এনবিসি নেটওয়ার্কের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের চিন্তা ছেড়ে দেননি বলেও জানান।