print

দৌলতপুর প্রতিনিধি :
কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের মহিষকুন্ডি বাজারে তানিম প্রাইভেট হাসপাতালে ভুল অপরেশনে জামালপুর গ্রামের ইদ্রিস আলির মেয়ে রুবিনা অবশেষে ৪ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছে। এলাকাবাসী ও রুবিনার মা জানাই গত ১০ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় মেয়েকে সনো করতে নিয়ে যায় তারিকুলের ক্লিনিকে তখন তারা বলে আমার মেয়ের পেটে পানি কমে গেছে তাড়াতড়ি সির্জার করতে হবে, মেয়েকে বাড়ীতে নিয়ে আসার চেষ্টা করলে তারা আমার মেয়েকে জোর করে রেখে দেয় এবং তারিকুল আমাদের না বলে সিজার করে। রাত ৯ টার সময় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে আমরা বাইরে নিতে চাইলে তারিকুল জোর করে আমাদের মেয়েকে রেখে দেয়। রাত ৩ টার সময় তরিকুল দৌলতপুর হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে সেখানে ডাক্তার না পেয়ে আবার মহিষকুন্ডি ক্লিনিকে নিয়ে আসে। রুবেনার অবস্থা আরো খারাপ হলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়, রুবেনার অবস্থা আশংকা জনক অবস্থায় ৪ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে ১৩ ডিমেস্বর বিকেলে মারা যায়। তরিকুল নিজেকে দৌলতপুর হাসপাতালের উপ সহকারী মেডিকেল অফিসার দাবী করেন। তরিকুল সাংবাদিকদের জানান তার ক্লিনিকে কোনো মেডিকেল অফিসার নাই, রোগীর সেবার জন্য নার্স নাই, উপযুক্ত যন্ত্রপাতি নাই, ভুয়া ডাক্তার দিয়ে মানুষ ঠকিয়ে অপারেশনের কাজ নিজেই করে চলেছে, অভিজ্ঞতা নাই, কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে চলে হাসপাতাল । ডায়াগনস্টিক এর অনুমোদন না থাকলেও ভ’য়া ডাক্তার দিয়ে সনো ও প্যাথলজিক্যাল পরিক্ষা এখানে করা হয় ।এলাকাবাসী খোভে ফুঁসে উঠেছে, তাদের দাবী তদন্ত পূর্বক এই হাসপাতালের যথাযথ ব্যবস্থা করা হউক।

LEAVE A REPLY