জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধন কেন্দ্র করে গাজায় নিহত ৪০

জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তরের প্রতিবাদে বিক্ষোভ ডেকেছিল ফিলিস্তিনিরা। সেই বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণের কারণ দেখিয়ে ইসরায়েলি বাহিনী গুলি ও আগুন ছুড়ে। এতে নিহত হয়েছেন অন্তত ৪০ ফিলিস্তিনি। ১৪ মে সোমবারের এই ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ১ হাজারের বেশি মানুষ। খবর বিবিসি, ইন্ডেপেনডেন্ট।ফিলিস্তিনে গাজার উপত্যকার ওই ঘটনায় নিহতদের মধ্যে একজন ১৪ বছরের শিশু রয়েছে বলে জানিয়েছে গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।
বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছে, ইসরায়েলি নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে এ সংঘর্ষে ১ হাজারেরও বেশি মানুষ আহত হয়েছেন।ইসরায়েলের নিরাপত্তা বাহিনী জানায়, বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়লে ১০ হাজার বিক্ষোভকারীকে নিয়ন্ত্রণে ঠিক যতোটুকু আগুন ছুড়ার বিধিমালা রয়েছে, সে অনুযায়ী আগুন ছুড়েছে আমাদের বাহিনী।

গত ছয় সপ্তাহ ধরেই মে মাসের ১৪ তারিখ এবং জেরুজালেম সারা বিশ্বের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে। কেননা, সেখানেই পুরোদমে চালু হতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস যা নিয়ে রয়েছে সমালোচনা এবং মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

জেরুজালেমকে নিজেদের রাজধানী বলে বিবেচনা করে ইসরায়েল। অপরদিকে ফিলিস্তিনিরা তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের রাজধানী হিসেবে পূর্ব জেরুজালেম দাবি করে আসছে। তারা ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তে অত্যন্ত ক্ষুব্ধ।ফিলিস্তিনিরা মার্কিন এই সিদ্ধান্তের নিন্দা জানিয়ে এর প্রবল বিরোধিতা করেছে। দূতাবাস উদ্বোধনের বিরুদ্ধে গণ প্রতিবাদের জন্য জেরুজালেমে জমায়েত হচ্ছে তারা।

এদিকে তেল আবিব থেকে সরিয়ে জেরুজালেমে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস খোলা নিয়ে রয়েছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের সমালোচনা।বিশ্লেষকদের মতে, জেরুজালেমে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস নিয়ে আসার এই পদক্ষেপ এ অঞ্চলের সাত দশকেরও বেশি রাজনৈতিক অস্থিরতাকে আরও উসকে দেবে।