বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ও যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী সর্বোত্তম চিকিৎসার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে লন্ডন পাঠানোর জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
তিনি বলেছেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসকরা বলেছেন- তিনি (বেগম জিয়া) ৭ মিনিট অজ্ঞান ছিলেন, এ কথা সঠিক হয়ে থাকলে তার নিশ্চয়ই টিআইএ হয়েছিল। অর্থাৎ তার সাময়িকভাবে মস্তিস্কে রক্ষ চলাচল কমে গিয়েছিল। এই ধরনের রোগীর ভবিষ্যতে ব্রেন স্ট্রোক বা প্যারালাইসিস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। সেহেতু এই পর্যায়ে সর্বোত্তম নিউরোলজিক্যাল সেন্টারে তার চিকিৎসা হওয়া উচিত।
রাজধানীর তোপখানারোডস্থ শিশু কল্যাণ মিলনায়তনে রোববার বাংলাদেশ জনদল আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।
দেশের খ্যাতনামা চিকিৎসক সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, যেহেতু খালেদা জিয়া ৩ বার প্রধানমন্ত্রী এবং বিরোধী দলের নেতা ছিলেন সুতরাং অন্য বিবেচনা বাদ দিয়ে শুধুমাত্র রাজনৈতিক ও সামাজিক বিবেচনায় তার সঠিক চিকিৎসা হওয়া উচিত।
রোগবিজ্ঞানের অধ্যাপক ডা. বি. চৌধুরী বলেন, প্রয়োজন হলে সর্বোত্তম চিকিৎসার জন্য তাকে (খালেদা জিয়া) পৃথিবীতে এই ধরনের রোগের জন্য শ্রেষ্ঠতম নিরাময় কেন্দ্রে পাঠানো উচিত। এই হিসাবে তাকে লন্ডনের ইনস্টিটিউট অফ নিউরোলজি কুইনন্স স্কয়ার অথবা লন্ডনের হ্যামার স্মীথ হাসপাতালের (সাবেক রয়েল পোস্ট গ্র্যাজুয়েট মেডিকেল স্কুল) মতো নিরাময় কেন্দ্রে তার চিকিৎসা হওয়া উচিত।
তিনি বলেছেন, খালেদা জিয়ার কিছু হলে দায় সরকারের। সরকারকে মনে রাখতে হবে তিনি দেশের একজন সম্মানিত প্রবীণ নাগরিক। দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলেরও প্রধান।
জাতীয় নির্বাচন নিয়ে বি চৌধুরী বলেন, অংশগ্রহণমূলক ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে জাতীয় নির্বাচনের ১০০ দিন পূর্বে সংসদ ও মন্ত্রীসভা ভেঙ্গে দিয়ে নির্দলীয় সরকার বা জাতীয় সরকার গঠন করতে হবে।
নাগরিক ঐক্য আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, গত ৫দিন যাবত সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া অসুস্থ আর সরকার তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করছেন না এটি অমানবিক। সরকারকে মনে রাখতে হবে, বেগম জিয়ার কিছু হলে তাদের মুক্তি নাই। এর জন্য বিশেষ কোন পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে তার দায় সরকারকেই বহল করতে হবে।
জেএসডি সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বলেন, অন্যদেশের সনদ নিয়ে যারা দেশ পরিচালনা করতে চান তাদের দিয়ে আর যাই হোক দেশের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে না। পরিবর্তনের জন্য প্রয়োজন গণআন্দোলন।
জনদল সভাপতি এম শাহজাহানের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেএসডি সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতনসহ আরো অনেকে।