গুড়ের প্রচুর গুণাগুণ

গুড়ের এত গুণ আছে যা বলে শেষ করা যাবে না। যেমন, গুড় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। গুড়ের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে। এ ছাড়াও থাকে জিঙ্ক এবং সেলেনিয়াম। এর ফলে গুড় শরীরকে বিভিন্ন জীবাণু এবং সংক্রামক রোগের হাত থেকে রক্ষা করতে পারে। এ ছাড়াও, গুড় রক্তে হিমাগ্লে­াবিনের মাত্রা সঠিক রাখতে সাহায্য করে। তাই গুড় শুধু শরীরকে ভিতর থেকেই নয়, বাইরে থেকে সুস্থ এবং সবল রাখতে পারে। গুড় লিভার ভালো রাখে। গুড় খেলে লিভারের কাজ ভালোভাবে হয় এবং লিভারকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। গুড় লিভার থেকে ক্ষতিকারক উপাদান বের করে দিতে সাহায্য করে এতে লিভারের পাশাপাশি শরীরও ভালো থাকে। তাই রোজ এক টুকরো গুড় খেলে শরীর সুস্থ থাকবে।

গুড়ের মধ্যে যে কত রকমের পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে, তা তো আগেই বলা হয়েছে। তাই শরীরকে সুস্থ রাখতে এটি খুবই সাহায্য করে। একই সঙ্গে, গুড় দারুণ কাজ করে ঋতুস্রাবকালীন পেটে ব্যথা দূর করতে এবং পেটে খিঁচ ধরে ব্যথা হওয়াও রোধ করতে পারে। ঋতুস্রাবের আগে সব থেকে বেশি মানসিক সমস্যা হয়। এ ধরনের উপসর্গকে বলা হয় প্রিমেন্সটুয়াল সিনড্রোম। এ সমস্যা রোধ করতেও গুড় দারুণ কাজ করে। গুড়ের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে আয়রণ এবং ফোলেট থাকে, যা রক্তের মধ্যে লোহিত রক্তকণিকার পরিমাণ সঠিক রাখতে সাহায্য করে। গুড় সব থেকে বেশি উপকার করে গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে। তাই এমনি সময় হোক বা গর্ভবতী অবস্থায়, গুড় খাওয়া নারীদের জন্য খুবই উপকারী এবং স্বাস্থ্যকর।

গুড় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে। এর কারণ গুড় শরীরে হজম করার জন্য জরুরি উৎসেচকের ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে। ফলে পেট খুব তাড়াতাড়ি পরিষ্কার হয়ে যায়। জ্বর, সর্দি-কাশির হাত থেকে রক্ষা করে গুড়। শীতকালে ঘরে ঘরে শীত লেগে সদি-কাশি, জ্বর হতে থাকে এ ধরনের সমস্যাকে দূর করতে গুড়ের জুড়ি মেলা ভার। গরম পানির সঙ্গে গুড় মিশিয়ে খেলে এ ধরনের  সমস্যা দূর হয়। এ ছাড়াও চায়ের মধ্যে চিনি না মিশিয়ে গুড় মিশিয়ে পান করলেও উপকার পাওয়া যায়। পেট ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে গুড়। গরমকালে কাজ থেকে বাড়ি ফিরে এলেই গুড়ের বাতাসা ভেজানো পানি বা গুড়ের শরবত অনেকেই পান করেন। বর্তমানে এ অভ্যাসটা অনেকটা কমে এলেও অনেকেই এগুলো মেনে চলেন। আসলে দীর্ঘক্ষণ বাড়ির বাইরে রোধের মধ্যে বা গরমের মধ্যে থাকলে শরীর গরম হয়ে ওঠে। এমনকি, পেটের গ-গোলও দেখা যায়। এ অবস্থায় গুড়ের শরবত খুবই কাজ দেয়। কারণ, গুড়ের শরবত শরীর ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে। গুড় খাওয়ার সব থেকে বড় উপকার হলো, এটি রক্ত পরিশোধন করতে ভীষণভাবে সাহায্য করে।

নিয়মিত গুড় খেলে রক্ত পরিষ্কার হয় এবং শরীর সুস্থ থাকে। গুড় যেহেতু সরাসরি আখের রস বা খেজুরের রস থেকে তৈরি হয় হয়, তাই এটি শরীরের কোনো ক্ষতি করে না। উলটো শরীরের যত্নে দারুণ উপকারী ভূমিকা পালন করে।