ঈদ সমাগত। এক মাস সিয়াম সাধনার পর ঈদ হলো আনন্দের দিন। আর এই আনন্দের অন্যতম অনুষঙ্গ হলো খাবার। ঈদকে উপলক্ষ করে সবার বাসাতেই করা হয় নানা পদের মুখরোচক খাবারের আয়োজন। এক মাসের খাদ্যাভ্যাস বদলে এদিন সবাই সকালে নাস্তার টেবিলে বসে পড়েন, মুখে দেয় সেমাই, পায়েস, জর্দা, পোলাও-কোর্মাসহ আরও কত টক ঝাল মিষ্টি। নিজের বাসায় তো বটেই, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধবদের বাসায় ঘুরে ঘুরে প্রায় সারাদিনই টুকিটাকি এটা-সেটা খাওয়া হয়। তবে এই আনন্দের মাঝেও আমাদের একটু নজর দেয়া দরকার আমরা কি খাচ্ছি, কতটুকু খাচ্ছি, বিভিন্ন খাবারের প্রতিক্রিয়া কি তার ওপর।
মূল সমস্যাটা নিঃসন্দেহে খাবারের পরিমাণে। রমজানে খাবারের সংযম হোক বা না হোক, ঈদের দিন ভূরিভোজ করা হবেই, যেন এক মাসের খাবার একদিনেই উসুল করতে হবে। আবার বন্ধু বা আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে গেলে অনুরোধের চাপে কিছু তো গিলতেই হয়। আর এর চাপ পড়ে পেটের ওপর। অনেকেই একসঙ্গে প্রচুর পরিমাণ তৈলাক্ত বা চর্বিযুক্ত খাবার খেয়ে হজম করতে পারেন না। ফলে পেট ফাঁপে, জ্বালা-পোড়া করে, ব্যথা করে, বার বার পায়খানা হয়। আবার পর্যাপ্ত পানি পান না করার দরুন অনেকে কোষ্ঠকাঠিন্যতে ভোগেন। যদিও সাধারণভাবে কোন নির্দিষ্ট খাবার খেতে মানা নেই; কিন্তু পরিমাণ বজায় রাখাটা খুবই জরুরী। এক্ষেত্রে শুরু থেকেই পরিকল্পনা থাকা দরকার। দিনের মূল খাবার অর্থাৎ দুপুর ও রাতের খাবার কোথায় খাবেন ঠিক করে ফেলুন। অন্য বাসাগুলোতে বেড়াতে গিয়ে যথাসম্ভব কম খাবেন। পানি, শরবত, ফলের রস ও অন্যান্য তরল খাবার বেশি করে গ্রহণ করুন। এতে গুরুপাক খাবারের জন্য পেটে স্থান কমে যাবে।

খাবারের মেনুতে স্বাভাবিকভাবেই মিষ্টি জাতীয় খাবার বেশি থাকে। এছাড়া পোলাও, মুরগি, গরু বা খাসির মাংস, কাবাব ইত্যাদির সঙ্গে ঝাল খাবারও থাকে। আরও আছে চটপটি, দই কিংবা বোরহানির মতো টক খাবারও। যাদের বয়স কম এবং শারীরিক কোন সমস্যা নেই, তারা নিজের পছন্দমতো সবই খেতে পারেন এবং তাদের হজমেরও কোন সমস্যা হয় না, শুধু অতিরিক্ত না হলেই হলো। তবে অনেকে এক মাসের অনভ্যাসের কারণে হঠাৎ খুব বেশি ঝাল বা তৈলাক্ত বা ভাজাপোড়া খেলে অসুস্থ বোধ করতে পারেন। তাই সবার জন্যই খাবার হওয়া উচিত কম মসলাযুক্ত, কম তৈলাক্ত, ভালভাবে রান্না করা।

যারা মাঝবয়সী বা বৃদ্ধ বা যাদের অন্যান্য শারীরিক সমস্যা আছে, যেমন ডায়াবেটিস, ব্লাডপ্রেসার বা হৃদরোগ ইত্যাদি, তাদের খাবারের ব্যাপারে সতর্ক থাকা জরুরী। খাবারের পরিমাণটা ডায়াবেটিস রোগীর জন্য সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। সবচেয়ে বড় কথা এসব খাবার একবেলাই খাওয়া উচিত, অন্য বেলা স্বাভাবিক খেতে হবে। রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য এদিন একটু বেশি হাঁটাহাঁটি করতে পারেন, প্রয়োজনে ডায়াবেটিসের ওষুধ বা ইনসুলিনের মাত্রা একটু বাড়াতে হতে পারে। এ ব্যাপারে ঈদের আগেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ডায়াবেটিস রোগীকে অবশ্যই মিষ্টি জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। তারা বরং টক খাবারের মাধ্যমে রসনা পূরণ করতে পারেন। সবজি বা টক ফল দিয়ে মজাদার খাবার আগেই বানিয়ে রাখুন। এগুলো আপনাকে অন্য খাবার থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করবে। নিহায়েত মিষ্টি খেতে মন চাইলে চিনির বিকল্প দিয়ে মিষ্টি জাতীয় খাবার তৈরি করে নিবেন। পোলাও বিরিয়ানি কম খাবেন, ভাত খাওয়াই ভাল। তাই বলে অতিরিক্ত খাবার খাবেন না। মুরগি বা গরুর মাংস খাওয়া যাবে, যদি অতিরিক্ত তেল বা চর্বি না থাকে।

যাদের রক্তে কোলেস্টেরল বেশি বা উচ্চ রক্তচাপ আছে অথবা হার্টের সমস্যা আছে অথবা যারা মুটিয়ে যাচ্ছেন, তাদের অবশ্যই তেল ও চর্বি এড়িয়ে যেতে হবে। তবে চর্বি ছাড়া গরুর মাংস খাওয়া যাবে পরিমাণ মতো। ভাজাপোড়া খাবেন না, বিশেষ করে ঘরের বাইরে। আগের দিনের বাসি মাংস জ্বাল দিয়ে খাবেন না। মিষ্টিও পরিমাণের বেশি খাওয়া যাবে না। তারা ফল, ফলের রস, সালাদ ইত্যাদি বেশি করে খাবেন। বিশেষ করে খাবারের শুরুতে সালাদ খেলে অন্য খাবারের জন্য জায়গা কমে যাবে। এছাড়া টক দই খেলে উপকার পাবেন।

যাদের কিডনির সমস্যা আছে তাদের মাংস এবং অন্যান্য প্রোটিন পরিহার বা কম খাওয়াই ভাল বা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। দিনে এক-দুই টুকরোর বেশি মাংস খাওয়া উচিত নয়। খাসি, কলিজা, মগজ, চিংড়ি ইত্যাদি খাবেন না বা সামান্য খাবেন। ফল খাবার ব্যাপারেও নিষেধাজ্ঞা থাকে। তাদের অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিত ঈদের আগেই। যারা দুধ সহ্য করতে পারেন না তাদের দুধের তৈরি খাবার এড়ানো ছাড়া উপায় নেই, তবে বোরহানি বা টক দই খাওয়া যায়। অনেকে সালাদ খেলে সমস্যায় পড়েন, তাদেরও তা এড়াতে হবে। প্রচুর পানি পান করতে হবে, যাতে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা না হয়।

ঈদে অতিরিক্ত খেয়ে পেট জ্বালা করা, ফাঁপা আর পেপটিক আলসার খুব সাধারণ সমস্যা। যাদের পেটের এই সমস্যা আছে তারা অতিরিক্ত ঝাল, মসলাযুক্ত খাবার পরিহার করবেন। দুই বেলা খাবার আধাঘণ্টা আগে আলসারের ওষুধ যেমন ওমেপ্রাজল, ইসমিপ্রাজল, রেনিটিডিন ইত্যাদি খেয়ে নিবেন। প্রয়োজনে খাবার পর দুই চামচ এন্টাসিড খেতে