print

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি :
কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীতে ৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে ভুরুঙ্গামারী থানায় মামলা হলেও আসামীকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।
জানাগেছে, গত ২৪ ডিসেম্বর উপজেলার বলদিয়া ইউনিয়নের উত্তর বলদিয়া গ্রামের দরিদ্র প্রতিবন্ধী শাহা আলমের কন্যা শারমিন খাতুন(৯) প্রতিদিনের ন্যায় বাড়ির পাশে রান্নার জন্য গাছের পাতা কুড়াতে যায়। এসময় একই গ্রামের মৃত পরজিত আলীর পুত্র হাছেন আলী ওরফে টেরা হাছেন (৫৫) তাকে পিছন দিক থেকে জাপটে ধরে মুখে গামছা দিয়ে পার্শ্ববর্তী পরিত্যক্ত স্যালো মেশিন ঘরে নিয়ে যায়। পরে সেখানে ধর্ষনের চেষ্টা চালালে শারমিনের আর্তচিৎকারে প্রতিবেশীসহ বাড়ির লোকজন তাকে উদ্ধার করে। পরে বিষয়টি নিয়ে গ্রাম্য বিচার করার নামে স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল বাতেন সরকার বিভিন্ন তালবাহানা করায় গত ২৬ ডিসেম্বর শিশুর পরিবার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ দায়ের করে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষয়টি আমলে নিয়ে কচাকাটা অফিসার ইনচার্জকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেয়।
এ বিষয়ে কচাকাটা থানার অফিসার ইনচার্জ ফারুক খলিল জানান, ভুরুঙ্গামারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক প্রেরিত অভিযোগ এবং গত ২৭ ডিসেম্বর ধর্ষিতার পিতা প্রতিবন্ধী হওয়ায় তার দাদী নাসিমা খাতুন বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ করেন। বিষয়টি থানার এসআই সহিদকে তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
এসআই সহিদ জানান, ঘটনা তদন্ত করা হয়েছে। ধর্ষক পলাতক থাকায় গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। ধর্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
এলাকাবাসী জানায়, উক্ত হাছেন টেরা কবিরাজীর নামে বিভিন্ন স্থানে ইতিপুর্বে নারীঘটিত কেলেঙ্কারীতে কয়েকবার গনধোলাইয়ের শিকার হয়েছে। এলাকাবাসী উক্ত নরপশু হাছেন টেরার দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেছেন।

LEAVE A REPLY