কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হামিদুল বাহিনী প্রধান শীর্ষ সন্ত্রাসী হামিদুল ইসলাম (৪৫) নিহত হয়েছেন। র‌্যাবের দাবি এ ঘটনায় তাদের ২ সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে র‌্যাব অস্ত্র, গুলি ও ম্যাগজিন উদ্ধার করেছে।
মঙ্গলবার (১৫মে) ভোর ৫টার দিকে শহরের গড়াই নদীর বাঁধ সংলগ্ন চর মিলপাড়ার বালুর মাঠে এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনা ঘটে। র‌্যাব থেকে পাঠানো এক ক্ষুদে বার্তায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১২ কোম্পানী কমান্ডার এম মুহাইমিনুর রশিদ।

র‌্যাব জানায়, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ঘটানোর উদ্দেশ্যে একদল সন্ত্রাসী গড়াই নদীর পাড় সংলগ্ন বালুরমাঠে অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদ পেয়ে র‌্যাবের একটি টহলদল ঘটনাস্থলে অভিযান চালায়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। জবাবে র‌্যাব ও পাল্টা গুলি চালালে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একজন গুলিবিদ্ধ হলে তাকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

র‌্যাব জানতে পারে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ব্যাক্তি হামিদুল বাহিনীর প্রধান শীর্ষ সন্ত্রাসী হামিদুল ইসলাম। তিনি পুলিশের তালিকাভূক্ত একজন শীর্ষ সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে হত্যা, মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধের একাধিক মামলা রয়েছে।

‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ র‌্যাব সদস্য আহত হলে তাদের চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ১টি দেশী পিস্তল, ১টি বিদেশী পিস্তুল, ৫ রাউন্ড গুলি ও ২টি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত হামিদুল ইসলাম সদর উপজেলার ইটভাটা এলাকার মৃত রুস্তম আলীর ছেলে।

উল্লেখ্য ২০০৭ সালে হামিদুল বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড তার ছোট ভাই রাশিদুল ইসলাম ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়।