মালয়েশিয়ায় এবছরের এশিয়া কাপে বাংলাদেশের মেয়েদের শুরুটা হয়েছিল শ্রীলঙ্কার কাছে লজ্জাজনক হারে। এরপর তাদের যেন ফিনিক্স পাখির মত নবজন্ম হয়েছে। পরের চারটি ম্যাচ টানা জিতেছে দলটি। যার মধ্যে ছিল পাকিস্তান এবং ভারতও। শেষ ম্যাচে টাইগ্রেসরা জয় পেয়েছে স্বাগতিক মালয়েশিয়ার বিপক্ষে। কিনরারা একাডেমি ওভালে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৩০ রান করে বাংলাদেশ। জবাবে ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ৬০ রানেই শেষ হয়ে যায় মালয়েশিয়ার ইনিংস। ৭০ রানের এই বিশাল জয়ে বাংলাদেশ উঠে গেছে এশিয়া কাপের ফাইনালে। রোববারের এই ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ ভারত। পাকিস্তানকে হারিয়ে একই দিনে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে তারা। এই প্রথম বাংলাদেশের মেয়েরা এমন টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেছেন।

২০০৪ সালে প্রথমবার এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের আয়োজনে মেয়েদের এশিয়া কাপ ক্রিকেট শুরু হয়। সেবার ভেন্যু ছিল শ্যীলঙ্কা। প্রথম চ্যাম্পিয়ন ছিল ভারতই। শুধু তাই নয়, ২০১৬ পর্যন্ত মোট ৬বার মেয়েদের এশিয়া কাপ হয়েছে। প্রত্যেকবারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তারা। ২০০৮ পর্যন্ত এই আসর ছিল ওয়ানডে ফরম্যাটের। এই ২০১৮ নিয়ে টানা তিনবার টি-টুয়েন্টি ফরম্যাটে হচ্ছে এশিয়া কাপ। বাংলাদেশের মেয়েরা আক্ষরিক অর্থেই সবাইকে চমকে দিয়ে ফাইনালে উঠে এসেছে।

রোববারের ফাইনালে ভারতের লক্ষ্য থাকবে টানা সপ্তমবারের মতো এশিয়া কাপের শিরোপা ঘরে তোলা। যেখানে বাংলাদেশের মেয়েদের জন্য এমন মর্যাদার শিরোপার হাতছানি আগে আসেনি। এশিয়ার সেরা হওয়া বলে কথা! এই প্রেরণায় সালমার বাঘীনি দল আরো একবার ভারতকে বধ করে দেশকে ঈদ উপহার দিতে পারেন কি না তাই দেখার অপেক্ষা এখন।

এদিন বাংলাদেশ ভালো শুরু পেয়েছে দুই ওপেনার শামিমা সুলতানা ও আয়েশা রহমানের ব্যাটে। ৯.৫ ওভারের উদ্বোধনী জুটিতে আসে ৫৯ রান। আয়েশা ৩১ রান করে আউট হলেও শামিমা ব্যাট চালিয়ে যান। এরপর অবশ্য তেমন বড় কোন জুটি হয়নি। ৫৪ বলে দলীয় সর্বোচ্চ ৪৩ রান করেন শামিমা। তিনি দলীয় ৮৭ রানে তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ফিরে যান। দলীয় ১২৩ রানে চতুর্থ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। শেষপর্যন্ত ফাহিমা খাতুনের ১২ বলে ৩ চারে ২৬ রানের ঝড়ে দল ১৩০ রানের স্কোর দাঁড় করায়। ১৯ রান খরচায় দুইটি উইকেট পেয়েছেন ডানহাতি পেসার উইনিফ্রেড দুরাইসিংগাম।

১৩১ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৭ রানে প্রথম উইকেট হারায় মালয়েশিয়া। বাংলাদেশি বোলারদের তোপে ৫০ রান তুলতেই পাঁচ উইকেট হারিয়ে ফেলে দলটি। ততক্ষণে শেষ ১৫ ওভারের খেলা। জয়ের আশা নেই বললেই চলে। শেষপর্যন্ত পুরো ২০ ওভারই ব্যাট করে মালয়েশিয়ার মেয়েরা। টাইগ্রেসরা তাদের ৯ উইকেট শিকার করে। ৬০ রানেই থেমে যায় দলটির ইনিংস। বাংলাদেশি লেগি রুমানা ৮ রান খরচায় ৩ উইকেট পান। ম্যাচসেরার পুরস্কার পেয়েছেন শামিমা।