আশরাফুলের ‘দুর্দান্ত’ ব্যাটিংয়ে কলাবাগানের জয়

0
197
Smiley face

ক্রীড়া প্রতিবেদক
টানা সাত ম্যাচে রান পাননি। যে কারণে অষ্টম রাউন্ডের ম্যাচে দল থেকে নাম প্রত্যাহার করে নেন মোহাম্মদ আশরাফুল। নবম রাউন্ডের ম্যাচে একাদশে ফিরেই কলাবাগান ক্রীড়া চক্রকে দারুণ এক জয় এনে দেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক। সোমবার আশরাফুলের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে পরাজিত করে কলাবাগান।

বিকেএসিপর-৪ নম্বর মাঠে ৪৫ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ২১৩ রান সংগ্রহ করে শেখ জামাল। জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে আশরাফুলের হার না মানা দুর্দান্ত ইনিংসের ওপর ভর করে ৯ বল ও ৭ উইকেট হাতে রেখেই জয় নিশ্চিত করে কলাবাগান।

তিন নম্বরে নেমে ৮১ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন আশরাফুল। ৮৭ বলে ৬টি চার ও ২টি ছক্কার সাহায্যে এই রান করেন কলাবাগানের অধিনায়ক। এছাড়া তাসামুল হক ৪৮, মেহরাব হোসেন জুনিয়র ৪৩ এবং মো. জসিম উদ্দিন করেন ২৯ রান।

শেখ জামালের একটি করে উইকেট নেন তানভীর হায়দার ও শাকিল। শাহাদাদ হোসেন, ইলিয়াস সানি ও সোহাগ গাজীর মতো বোলাররা উইকেটশূন্য থাকেন।

এর আগে টপঅর্ডারদের ব্যর্থতায় বড় সংগ্রহ গড়তে ব্যর্থ হয় শেখ জামাল। আবুল হাসান, সাদ নাসিম ও মুক্তার আলী নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ২১৩ রানেই আটকে যায় রাজিন সালেহর দল।

শেখ জামালের হয়ে রাজিন ৪৫, সোহাগ গাজী ৩৯, ইলিয়াস সানি ৩৬ ও মাহবুবুল করিম করেন ৩২ রান।

কলাবাগানের হয়ে আবুল তিনটি এবং সাদ ও মুক্তার নেন দুটি করে উইকেট।

তাসামুল ও জসি উদ্বোধনী জুটিতে ৬২ রান তোলে কলাবাগানকে মজবুত ভিত এনে দেন। দলীয় ৮১ রানের মাথায় তাসামুল এবং দলীয় ১০৩ রানের মাথায় তুষার ইমরান (১০) আউট হয়ে গেলে ম্যাচে ফিরে আসে জামাল।

তবে এরপরই নিজের হারিয়ে যাওয়া দিনগুলোকে মনে করিয়ে দেন আশরাফুল। চতুর্থ উইকেটে মেহরাবকে নিয়ে ১১১ রানের দারুণ জুটি গড়ে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন কলাবাগানের অধিনায়ক।

LEAVE A REPLY